ডিজিটাল মার্কেটিং শেখার উপায় স্টেপ বাই স্টেপ

ডিজিটাল মার্কেটিং শেখার উপায় ও ডিজিটাল মার্কেটিং কোর্স সম্পর্কে বিস্তারিত জানার জন্য লেখাটি মনোযোগ দিয়ে পড়ুন। অনলাইনে বিজনেস করার চাহিদা বর্তমান সময়ে তুমুলভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। আর অনলাইনে যদি আপনাকে ব্যবসা করতে হয়। সেই ব্যবসা লাভবান পর্যায়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য আপনাকে অবশ্যই ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের জ্ঞান রাখতে হবে।

যদি আপনার এই মার্কেটিং পদ্ধতি সম্পর্কে অভিজ্ঞতা না থাকে, তাহলে কিন্তু আপনি কখনো অনলাইন ব্যবসা করে লাভবান হতে পারবেননা। ডিজিটাল মার্কেটিং এমন একটি পদ্ধতি, যার মাধ্যমে আপনি অনলাইনে আপনার টার্গেট ক্রেতাদের কাছে পৌঁছে যেতে পারবেন। এবং তাদেরকে আপনার পণ্য এবং সার্ভিস বিক্রয় করতে পারবেন।

ফলে আপনি অনলাইন থেকে ভালো লাভবান হতে পারবেন। মার্কেটিং যদি আপনি না জানেন, তাহলে আপনাকে বিজ্ঞাপনের জন্য একাধিক টাকা খরচ করতে হবে। যদি আপনি মার্কেটিংয়ের ব্যবহার করতে পারেন, তাহলে সম্পূর্ণ ফ্রিতে আপনি বিজ্ঞাপন দিয়ে অনলাইনে আপনার যেকোন ধরণের সার্ভিস ও পণ্য বিক্রয় করার সুবিধা পাবেন।

এজন্য অবশ্যই আপনাকে একজন মার্কেটিং এক্সপার্ট হতে হবে। যেহেতু বর্তমান সময়ে ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের চাহিদা অনেক বেশি বৃদ্ধি পাচ্ছে। এজন্য অনেকেই জানতে চাই, কিভাবে ডিজিটাল মার্কেটিং শিখা যায়? এবং ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের কিছু কোর্স সম্পর্কে অনেকেই বিশেষ করে ধারণা পেতে চাই। কোথা থেকে কোর্স করলে সবচেয়ে ভালো হবে?

Advertisement

এই বিষয়ে অনেকে জানতে চান। যারা জানার আগ্রহী তাদের জন্য আমাদের আজকের আর্টিকেল। যদি আপনি এই বিষয়ে পরিপূর্ণভাবে জানতে চান, তাহলে আর্টিকেলটি মনোযোগ দিয়ে পড়ুন। যদি আর্টিকেলটি পড়ে এখান থেকে তথ্যবহুল আলোচনা আপনি পেয়ে থাকেন, তাহলে অবশ্যই একটা কমেন্ট করে আমাদেরকে আপনার মতামত জানাতে ভুলবেন না।

ডিজিটাল মার্কেটিং কি?

ডিজিটাল মার্কেটিং কি? এই বিষয়ে অনেকে আমাদের কাছ থেকে বিস্তারিত জানতে চান। যারা এবিষয়ে জানেন না, তারা যদি এই বিষয়টা জানেন, তাহলে অবশ্যই ডিজিটাল মার্কেটিং সম্পর্কে বুঝতে পারবেন। যদি আমি ডিজিটাল মার্কেটিং কি? এই বিষয়ে আপনাকে সহজে বুঝাতে চাই, তাহলে আমি বলতে পারি।

ডিজিটাল মার্কেটিং হচ্ছে এমন একটি পদ্ধতি যার মাধ্যমে অনলাইনে বিভিন্ন প্রোডাক্ট এবং সার্ভিস প্রমোট ও সেল করার জন্য ব্যবহার করা হয়। আরো সহজে যদি এটা নিয়ে আলোচনা করতে চাই, তাহলে বলতে পারি। অনলাইনে সোশ্যাল মিডিয়া, ওয়েবসাইট, মোবাইল অ্যাপ, ইত্যাদি ব্যবহার করে পণ্য বা সেবা বিক্রয় করার জন্য যে সকল কৌশল অনুসরণ করা হয়। সেই কৌশলগুলোকে ডিজিটাল মার্কেটিং বলা হয়।

ফ্রি-তে ডিজিটাল মার্কেটিং শেখার উপায়

ফ্রিতে এবং পেইড পদ্ধতি দুটি মাধ্যমে আপনি ডিজিটাল মার্কেটিং শিখতে পারেন। ফ্রি-তে ডিজিটাল মার্কেটিং শেখার জন্য আপনাকে একটু বেশি কষ্ট করতে হবে। কারণ ডিজিটাল মার্কেটিং শেখার জন্য যে সকল তথ্যের প্রয়োজন। সেগুলো আপনাকে স্টেপ বাই স্টেপ খুঁজে বের করতে হবে। যদি আপনার এই বিষয়ে অভিজ্ঞতা না থাকে, তাহলে কিন্তু আপনি পরিপূর্ণভাবে ডিজিটাল মার্কেটার হয়ে উঠতে পারবেন না।

Advertisement

যেহেতু পূর্বে থেকে এবিষয়ে আপনার অভিজ্ঞতা থাকবে না। এজন্য আমার পরামর্শ হচ্ছে, আপনি কোনো একটা আইটি প্রতিষ্ঠান থেকে ডিজিটাল মার্কেটিং শেখার পরিপূর্ণ একটা পেইড কোর্স করতে পারেন। তবে আমরা আলোচনা করব কোন কোন মাধ্যমে আপনি পেইড কোর্স করে পরবর্তীতে ডিজিটাল মার্কেটিং শিখতে পারেন? তবে এমন অনেকেই রয়েছে। যারা কোনো বিনিয়োগ করতে পারবেন না।

কিন্তু যাদের ডিজিটাল মার্কেটিং শেখার আগ্রহ অনেক বেশি, তাদের জন্য আমরা এখানে কিছু গাইড শেয়ার করব। যেন আপনি সম্পূর্ণ ফ্রিতে ডিজিটাল মার্কেটিং শেখার উপায় জানতে পারেন। যদি আপনি এই কৌশল গুলো জেনে যান, তাহলে কোনো রকম বিনিয়োগ না করে বা কোথাও টাকা দিয়ে কোর্স না করে। ডিজিটাল মার্কেটিং আপনি শিখতে পারবেন। তবে এক্ষেত্রে আপনার হয়তো একটু বেশি কষ্ট হবে।

ফ্রি-তে এমন না যে, আপনি ডিজিটাল মার্কেটিং নলেজ পরিপূর্ণ অর্জন করতে পারবেন না। এই ক্ষেত্রে আপনার সময় এবং কষ্টটা একটু বেশি প্রয়োজন হবে। যদি আপনি আপনার মূল্যবান সময়কে ব্যয় করে পরিশ্রম করতে পারেন, তাহলে অবশ্যই আপনি খুব দ্রুত ডিজিটাল মার্কেটিং সম্পর্কে শিখতে পারবেন এবং একজন এক্সপার্ট হয়ে উঠতে পারবেন।

প্রথমে একটা ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের চেক লিস্ট সম্পূর্ণ সংগ্রহ করুন

ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের চেক লিস্ট যদি সংগ্রহ করতে পারেন, তাহলে আপনি বুঝতে পারবেন কোন ধাপের পর আপনাকে কোন ধাপে যেতে হবে। যদি আপনার কাছে একটা চেক লিস্ট থাকে, তাহলে এটা আপনাকে পরিপূর্ণভাবে ডিজিটাল মার্কেটিং শেখার জন্য সাহায্য করতে পারে। আর যদি আপনার কাছে কোন চেকলিস্ট না থাকে, তাহলে আপনি কোথাও অলরেডি আপনার বন্ধু-বান্ধব পেইড কোর্স করে বা আইটি সেন্টার থেকে ডিজিটাল মার্কেটিং নিয়ে প্রশিক্ষণ করেছেন।

Advertisement

এমন একজন বন্ধুর কাছ থেকে আপনি একটা ডিজিটাল মার্কেটিং চেকলিস্ট সংগ্রহ করতে পারেন। সাধারণত প্রতিটা আইটি সেন্টার প্রাথমিকভাবে নতুন ছাত্রদেরকে একটা চেকলিস্ট এর পিডিএফ দিয়ে থাকে। যার মাধ্যমে ছাত্ররা খুব সহজেই ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের বিভিন্ন পাঠ সম্পর্কে বুঝতে পারে।

যদি আপনার কোন বন্ধু এরকম পরিচিত না থাকে, তাহলে আপনি গুগলে সার্চ করে সঠিক একটা ডিজিটাল মার্কেটিং চেক লিস্ট সংগ্রহ করতে পারেন। আপনি যদি গুগলে সার্চ করেন, তাহলে ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের অনেকগুলো চেকলিস্ট পেয়ে যাবেন। যেটা আপনাকে অনেক বেশী সাহায্য করবে ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের পরিপূর্ণ শেখার জন্য।

ইউটিউবের সাহায্যে মার্কেটিং শিখতে শুরু করুন

আমি মনে করি, আপনি খুব দ্রুতই আপনার কোনো বন্ধু অথবা গুগল থেকে ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের চেক লিস্ট সংগ্রহ করেছেন। এই চেকলিস্ট সংগ্রহ করার পর আপনাকে ডিজিটাল মার্কেটিং শেখা শুরু করতে হবে। আপনার চেক লিস্ট অনুযায়ী আপনাকে শিডিউল তৈরি করতে হবে। এবং সিডিউল অনুযায়ী আপনাকে প্রতিদিন ডিজিটাল মার্কেটিং সম্পর্কে জ্ঞান অর্জন করতে হবে। ডিজিটাল মার্কেটিং সম্পর্কে জানার জন্য ইউটিউব হচ্ছে সেরা একটি প্লাটফর্ম।

যেখানে অনেক অভিজ্ঞ ব্যক্তিরা আপনাকে ডিজিটাল মার্কেটিং শেখার জন্য ধারাবাহিকভাবে টিউটোরিয়াল প্রকাশ করে যাচ্ছে। এবং ইতিমধ্যে হাজার হাজার টিউটোরিয়াল ইউটিউবের মধ্যে প্রকাশিত হয়েছে। যেগুলো আপনাকে ডিজিটাল মার্কেটিং সম্পর্কে বিস্তারিত জানার জন্য সাহায্য করবে। মনে রাখবেন আপনি যেহেতু সম্পূর্ণ ফ্রিতে ডিজিটাল মার্কেটিং শেখার উপায় খুঁজে বের করতে চান।

Advertisement

সুতরাং এক্ষেত্রে আপনাকে আপনার চেক লিস্ট অনুযায়ী ধারাবাহিক সবগুলো টিউটোরিয়াল খুঁজে বের করতে হবে। কারণ এখানে আপনাকে কোনো শিক্ষক সাহায্য করবে না। শিক্ষক বা একজন মেন্টর থাকলে সবগুলো টিউটোরিয়ালস ধারাবাহিকভাবে সংগ্রহ করে দিতো এবং হাতে-কলমে শিখানোর জন্য সাহায্য করতো। যেহেতু আপনি সম্পূর্ণ ফ্রিতে শিখবেন। এজন্য আপনাকে কষ্ট করে সব তথ্যসহ গুগল এবং ইউটিউব থেকে সংগ্রহ করতে হবে।

পরবর্তীতে আমরা জানব, গুগল আপনাকে কিভাবে ডিজিটাল মার্কেটিং শেখার জন্য সাহায্য করতে পারে? তবে আপনি যখন প্রাথমিকভাবে মার্কেটিং শুরু করবেন। অবশ্যই ইউটিউবের সাহায্য নিয়ে শুরু করবেন। আপনার চেক লিস্ট অনুযায়ী ধারাবাহিকভাবে ভিডিও দেখতে থাকবেন। এবং ভিডিও দেখে আপনি বসে থাকবেন না। ভিডিও দেখার সাথে সাথে ভিডিওতে যা যা দেখানো হচ্ছে, সে নিয়ম অনুযায়ী আপনাকে প্র্যাকটিস করতে হবে।

মনে রাখবেন “Practice is make perfect.” যদি প্রাকটিস আপনি করতে পারেন, তাহলে আপনি একজন পারফেক্ট ডিজিটাল মার্কেটার হতে পারবেন। যদি আপনি এই বিষয়ে অবহেলা থাকেন, তাহলে কিন্তু এই বিষয়ে আপনি কখনো ভালো করতে পারবেন না। যদি আপনি পরিশ্রম করেন, অবশ্যই পরিশ্রমের ভালো একটি ফলাফল পাবেন। সুতরাং আপনি যদি এই বিষয়ে অনেক বেশি আগ্রহী হয়ে থাকেন, তাহলে ইউটিউব এর মাধ্যমে আজ থেকে আপনি ডিজিটাল মার্কেটিং শেখার শুরু করতে পারেন।

আমি কয়েকটি জনপ্রিয় ডিজিটাল মার্কেটিং শেখার জন্য ইউটিউব চ্যানেল লিংক এখানে দিয়ে দিচ্ছি। চ্যানেল গুলো আপনাদেরকে সাহায্য করবে। নিচে এই চ্যানেলগুলো লিংক দেওয়া আছে। আপনারা নিজের ইচ্ছামত সব গুলো ভিজিট করে দেখতে পারেন। এবং এখান থেকে আপনারা নিজের পছন্দের চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করতে পারেন।

Advertisement

এমন না যে, আপনাকে একটি চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করতে হবে। আপনার পছন্দের একাধিক চ্যানেলে আপনি সাবস্ক্রাইব করে রাখতে পারেন এবং তারা যে সকল কৌশল শেয়ার করেন। সবগুলো কৌশল আপনি নিজে আয়ত্ত করে নিতে পারেন। যত বেশি কৌশল আপনি নিজে শিখতে পারবেন, ততবেশি আপনি ডিজিটাল মার্কেটিং সম্পর্কে অভিজ্ঞ হয়ে উঠতে পারবেন।

মার্কেটিং শেখার কিছু জনপ্রিয় ইউটিউব চ্যানেল:

গুগল থেকে ডিজিটাল মার্কেটিং শেখার উপায়

Advertisement

৮০ পার্সেন্ট এরও বেশি মার্কেটিং কৌশল আপনি ইউটিউব এর মাধ্যমে আয়ত্ব করতে পারবেন। তবে আপনাকে মাঝে মাঝে গুগলের সাহায্য নিতে হবে। আপনি যদি একজন অভিজ্ঞ ডিজিটাল মার্কেটার হতে চান এবং ডিজিটাল মার্কেটিং শেখার উপায় সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে চান, তাহলে অবশ্যই আপনাকে গুগলের সাহায্য নিতে হবে। এমন অনেকগুলো ব্লগ সাইট রয়েছে। যেখানে ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের নিয়মিত ব্লগ প্রকাশ করা হয়।

আপনাকে এধরনের ব্লগগুলো নিয়মিত পড়তে হবে। প্রতিদিন কমপক্ষে তিন থেকে চারটি ব্লগ পড়ার চেষ্টা করবেন। তাহলে আপনার জ্ঞান কে আপনি আরো বেশী ঝালাই করে নিতে পারবেন। যেটা আপনাকে আরো বেশি শিখতে সাহায্য করবে। যদি গুগলের কাছ থেকে আপনি শিখতে চান, তাহলে শেখা আপনার কখনো শেষ হবে না। কারণ, এখানে এমন এমন ব্লগ সাইট রয়েছে। যেগুলোতে অনেক তথ্যবহুল আলোচনা করা হয়।

ডিজিটাল মার্কেটিং সম্পর্কে যেমন আপনি এই ওয়েবসাইটে জানতে পারছেন। আপনি গুগলে সার্চ করে নিশ্চয় এই ওয়েবসাইট খুঁজে পেয়েছেন। যেহেতু আপনি ডিজিটাল মার্কেটিং শিখতে চাচ্ছেন। আপনি গুগলে সার্চ করছেন, এজন্য আপনি এই আর্টিকেলটি খুঁজে পেয়েছেন। সুতরাং এটা আপনাকে সাহায্য করতেছে ডিজিটাল মার্কেটিং শেখার উপায় সম্পর্কে জানতে। এবং ডিজিটাল মার্কেটিং সম্পর্কে আপনাকে তথ্য শেয়ার করতে।

Advertisement
ডিজিটাল মার্কেটিং শেখার উপায়
ডিজিটাল মার্কেটিং শেখার উপায়

যেহেতু আপনি গুগল এই ওয়েবসাইটটি সহজে খুঁজে পেয়েছেন। সুতরাং ডিজিটাল মার্কেটিং শেখার জন্য অবশ্যই আপনাকে ইউটিউব এর পরে গুগলকে রাখতে হবে। কারণ গুগলের মধ্যে যে সকল তথ্য খুঁজে পাবেন। সেগুলো কিন্তু অন্য কোন সার্চ ইঞ্জিনে খুঁজে পাবেন না।

ডিজিটাল মার্কেটিং সম্পর্কে তথ্য বহুল বিভিন্ন টিউটোরিয়াল এবং ব্লগ পড়ার জন্যে। এমন কিছু ওয়েবসাইটের লিঙ্ক আমি নিচে যুক্ত করে দিব। যেন আপনারা এগুলো থেকে ভালো জ্ঞান অর্জন করতে পারেন। আশা করছি, এই ওয়েবসাইট গুলো আপনারা নিয়মিত ভিজিট করলে মার্কেটিং সম্পর্কে অনেক ভাল জানতে পারবেন।

আপনি যদি একজন প্রফেশনাল মার্কেটার হতে চান, আপনাকে নতুন নতুন বিষয় প্রতিদিনের শিখতে হবে। যত বেশি শিখবেন, তত বেশি আপনি জানতে পারবেন। যদি আপনি ডিজিটাল মার্কেটিং সম্পর্কে ক্যারিয়ার গড়তে চান, তাহলে অবশ্যই আপনার শেখার শেষ থাকবে না। আপনাকে সবসময় শিখে যেতে হবে।

কারণ মার্কেটাররা সব সময় নতুন নতুন কৌশল নিয়ে আসে। তাদের মার্কেটিং পলিসি তে এই ধরনের কৌশল গুলো আপনাকে সবসময় আয়ত্ত করতে হবে। এবং নিজেকেও ক্রিয়েটিভ আইডিয়া জেনারেট করতে হবে। যেন আপনি ও আপনার ক্লায়েন্টকে মার্কেটিং সার্ভিস দিয়ে সাহায্য করতে পারেন। অথবা নিজের ব্যবসাকে অন্যদের চেয়ে এগিয়ে নিতে পারেন।

Advertisement

জনপ্রিয় কিছু মার্কেটিং শেখার ওয়েবসাইট:

ডিজিটাল মার্কেটিং কোর্স করে শেখার উপায়ঃ

কোর্স করে যদি আপনি ডিজিটাল মার্কেটিং শিখতে চান। এই ক্ষেত্রেও আপনি দুইভাবে মার্কেটিং শিখতে পারবেন। ফ্রিতে অনেকগুলো কোর্স করার সুযোগ রয়েছে এবং পেইড অনেকগুলো কোর্স রয়েছে। পেইড কোর্সগুলোর জন্য আপনাকে পেমেন্ট করতে হবে। যদি আপনি প্রিমিয়াম কোর্স করেন, তাহলে অবশ্যই আপনাকে পেমেন্ট করে কোর্স করে ডিজিটাল মার্কেটিং শিখতে হবে।

ডিজিটাল মার্কেটিং কোর্স সম্পর্কে পরবর্তী আরেকটা লিখা আমরা শেয়ার করব। যেখানে আমরা আরও বিস্তারিত তথ্য আপনাদের জন্য তুলে ধরব। ফ্রি এবং প্রিমিয়াম অনেকগুলো ডিজিটাল মার্কেটিং কোর্স নিয়ে আলোচনা করবো। যেগুলো অনেক জনপ্রিয় এবং অনেক এডভান্স লেভেলের ডিজিটাল মার্কেটিং কোর্স। এই লেখাতে আমরা আপনাদেরকে এমন কিছু পেইড কোর্সের তথ্য শেয়ার করব।

যেখান থেকে আপনারা টাকা দিয়ে ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের কোর্স করে শিখতে পারবেন। ডিজিটাল মার্কেটিং কোর্স করে শিখলে আপনি একজন মেন্টরের সাহায্যে নিয়ে পরিপূর্ণভাবে সবকিছু শিখতে পারবেন। তবে এক্ষেত্রে আপনাকে অবশ্যই কিছু টাকা বিনিয়োগ করতে হবে। যদি আপনার টাকা বিনিয়োগ করে শেখার সামর্থ্য থাকে, তাহলে আমি আপনাকে অবশ্যই একজন মেন্টরের সাহায্য নেওয়ার জন্য পরামর্শ দিচ্ছি।

যদি আপনি একজন শিক্ষকের সাহায্য নিয়ে শিখতে পারেন, তাহলে অবশ্যই আপনি সবকিছুতে ভালো ভাবে এক্সপার্ট হয়ে উঠতে পারবেন। কারণ, আপনি যদি কোনো জায়গায় আটকে যান। আপনার শিক্ষক বা মেন্টর আপনাকে অনেক বেশি সাহায্য করবে।

Advertisement

সবচেয়ে জনপ্রিয় কিছু ডিজিটাল মার্কেটিং কোর্স –

ডিজিটাল মার্কেটিং শেখার উপায়

যেহেতু এই লেখার মধ্যে আমরা ডিজিটাল মার্কেটিং শেখার উপায় শেয়ার করছি। এজন্য আপনাদেরকে আরও কিছু তথ্য শেয়ার করতে চাই। যেন আপনারা আরো বেশি জ্ঞান অর্জন করতে পারেন। এবং ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের যে মৌলিক অংশ গুলো রয়েছে। সেগুলো সম্পর্কে আপনারা জানতে পারেন। ইতিমধ্যে আমরা ডিজিটাল মার্কেটিং শেখার উপায় গুলো আপনাদের সাথে শেয়ার করেছি।

দুইভাবে আপনারা ডিজিটাল মার্কেটিং শিখতে পারেন। সে বিষয়টা আপনারা জেনে গেছেন। এবং কিভাবে আপনাকে মার্কেটিং শিখতে হবে? কিভাবে শুরু করতে হবে? সে বিষয়টি আপনি জেনে গেছেন। এখন আপনাকে যে বিষয়গুলোতে বেশি ফোকাস করতে হবে। সে বিষয়গুলো আমরা আপনাকে জানিয়ে দিবো। যেন আপনি ডিজিটাল মার্কেটিং এ একজন এক্সপার্ট হয়ে উঠতে পারেন। যদি আপনি এই বিষয়গুলোতে ভালোভাবে মনোযোগ দিতে না পারেন, তাহলে কিন্তু আপনি পরবর্তীতে ভালো করতে পারবেন না।

কারণ, এই সকল প্ল্যাটফর্ম গুলো আপনাকে ব্যবহার মারকেটিং হবে। এবং যে কোনো বিজনেস কে এগিয়ে নিতে হবে। ডিজিটাল মার্কেটিং শেখা নিয়ে আমাদের সকলের মূল উদ্দেশ্যটা হচ্ছে, কোনো ব্যবসা কে এগিয়ে নেওয়া। অনলাইনে যে কোনো ধরনের ব্যবসা যদি এগিয়ে নিতে চান, তাহলে অবশ্যই আপনাকে ডিজিটাল মার্কেটিং শিখতে হবে।

এটা হতে পারে আপনার নিজস্ব কোনো ব্যবসা। অথবা আপনি ডিজিটাল মার্কেটিং সার্ভিস বিক্রয় করে আপনার ক্লায়েন্টের কোনো ব্যবসাকে প্রমোট করতে পারেন। সে ক্ষেত্রে আপনি অবশ্যই এবিষয়ে ভালোভাবে যদি না জানেন, তাহলে আপনি কাজ করতে পারবেন না। এবং ক্লায়েন্টকে ভালো সার্ভিস প্রোভাইড করতে পারবেন না।

Advertisement

যদি আপনি মার্কেটপ্লেসে মারকেটিং সম্পর্কে পরিপূর্ণ না জেনে কাজ শুরু করেন, তাহলে আপনার প্রোফাইলটা নষ্ট হয়ে যাবে। এজন্য আপনাকে প্রথমে ভালোভাবে জ্ঞান অর্জন করতে হবে। এরপরে বায়ারদের কে সার্ভিস বিক্রয় করার মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করতে শুরু করবেন।

সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিং

অনেকগুলো পাঠের সমন্বয়ে মূলত ডিজিটাল মার্কেটিং গঠিত হয়। এর মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয় একটি অংশ হচ্ছে সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিং। যদি আপনি সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিং সম্পর্কে না জানেন, তাহলে কখনো আপনি একজন ডিজিটাল মার্কেটার হয়ে উঠতে পারবেন না। এটা ডিজিটাল মার্কেটার হওয়ার জন্য মৌলিক একটি অংশ।

আপনি যদি শুধুমাত্র সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিং সম্পর্কে ভালো জ্ঞান অর্জন করতে পারেন, তাহলে আপনি শুধুমাত্র একজন এসইও এক্সপার্ট হিসেবে অনলাইনে সার্ভিস প্রোভাইড করে। অথবা নিজের একটি ব্লগ ওয়েবসাইট করে সেখান থেকে ভালো পরিমাণ অর্থ উপার্জন করতে পারবেন। এক্ষেত্রে আপনাকে কেউ থামিয়ে রাখতে পারবে না। অনলাইনে ক্যারিয়ার গড়তে শুধুমাত্র এসইও এক্সপার্ট হওয়ার জন্য আপনাকে অনেক বেশি পরিশ্রম করতে হবে। এটা হচ্ছে ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের একটি অংশমাত্র।

শুধুমাত্র এই অংশটি কে যদি আপনি ভালো করে আয়ত্ত করতে পারেন, তাহলে আপনি ভাল করতে পারবেন। সুতরাং আপনি যদি ডিজিটাল মার্কেটিং শেখার উপায় জানতে চান, তাহলে অবশ্যই সেই উপায়ের মধ্যে আপনি সার্চ ইঞ্জিনকে সবার প্রথমে রাখবেন। যেন আপনি সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিং ভালভাবে বুঝতে পারেন।

Advertisement

যদি আপনি সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিং কে হাতের কড়ি বানিয়ে নিতে পারেন, তাহলে আপনার জন্যে মার্কেটিংয়ের কাজ গুলো অনেক বেশি সহজ হয়ে যাবে। এবং যেকোন বায়ারকে আপনি চ্যালেঞ্জ করে সেরা সার্ভিস দিতে পারবেন।

কনটেন্ট মার্কেটিং

ছবি, ভিডিও, লেখা, পিডিএফ, ইত্যাদি। যেকোনো ধরনের ফাইল অনলাইনে যা পাবেন, সবগুলোই হচ্ছে কনটেন্ট। অর্থাৎ অনলাইনে এগুলো সবচেয়ে জনপ্রিয় কিছু উপাদান যেগুলোকে আপনি প্রমোট করার মাধ্যমে অনলাইনে বিজনেস করতে পারবেন। যদি আপনি অনলাইনে বিজনেস করতে চান, অবশ্যই আপনাকে কনটেন্ট মার্কেটিং জানতে হবে। অর্থাৎ আপনার ওয়েবসাইটে আপনি যে সকল উপাদান পাবলিশ করতেছেন।

সেসকল উপাদানগুলোকে আপনাকে প্রমোট করার জন্য বা ক্রেতাদের কাছে পৌঁছে দেওয়ার জন্য। যে সকল কৌশল অনুসরণ করতে হবে। সেগুলো কে মূলত কন্তেন্ট মারকেটিং বলা হয়। যদি আপনি কনটেন্ট মার্কেটিং সম্পর্কে ভালো জ্ঞান অর্জন করতে পারেন, তাহলে আপনি যেকোন ওয়েবসাইট বা আপনার ক্লায়েন্টের বিভিন্ন ব্যবসায়িক তথ্যগুলোকে আপনি সঠিকভাবে প্রমোট করতে পারবেন।

যদি আপনি এই বিষয়ে আরো ভালোভাবে জানতে চান, তাহলে অবশ্যই গুগল এবং ইউটিউব এর সাহায্য নিবেন। যেটা আমি পূর্বেই আপনাদের সাথে শেয়ার করেছি। আপনারা গুগল এবং ইউটিউবের মাধ্যমে এই সকল বিষয়গুলো শিখতে পারবেন। আশা করছি, আপনি যদি মার্কেটিং শেখার জন্য চেকলিস্ট সংগ্রহ করে থাকেন। সেই চেকলিস্ট এর মধ্যে অবশ্যই কন্ট্যাক্ট মার্কেটিংটা রয়েছে।

Advertisement

যখন আপনার লিস্টে কন্টেন মার্কেটিংয়ের অপশনটা চলে আসবে, তখন অবশ্যই আপনাকে সে বিষয় নিয়ে মনোযোগ দিয়ে পড়তে হবে। কারন এটাও ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের একটি গুরুত্বপূর্ণ পাঠ। এটা অনেক বড় একটি সেক্টর, যেটাকে আপনি কখনো অবহেলা করতে পারবেন না।

ইনবাউন্ড মার্কেটিং

কাস্টমারদের চাহিদা পূরণ করার মাধ্যমে কাস্টমারদের সাথে পরিচিত হওয়া, একটি কমিউনিটি তৈরি করা, এবং তাদের সাথে রিলেশনশিপ তৈরি করার যে সকল কৌশল রয়েছে, সেগুলো কে মূলত ইন মারকেটিং বলা হয়। এগুলো যদি আপনি ভালভাবে আয়ত্ত করতে পারেন, তাহলে যে কোনো কাস্টমারের মন জয় করতে পারবেন।

অনলাইনে এই কৌশলগুলোকে সঠিকভাবে ব্যবহার করা জানতে হবে। যদি আপনি এগুলো ব্যাবহার করতে পারেন, তাহলে অনলাইনে যেকোন ক্রেতাকে আপনি নিজের করে ফেলতে পারবেন। অর্থাৎ আপনাকে এমন কিছু কৌশল শিখতে হবে। যে কৌশলগুলো আপনাকে ইনবাউন্ড মার্কেটিং এক্সপার্ট হিসেবে অন্যদের সামনে উপস্থাপন করতে সাহায্য করবে।

যদি আপনি এই সকল কৌশল আয়ত্ত করে ফেলতে পারেন, তাহলে আপনাকে যে কোনো কোম্পানির চাকরি দেওয়ার জন্য আগ্রহ দেখাবে। অর্থাৎ আপনি যদি ইনবাউন্ড মার্কেটিংয়ে অনেক বেশি ভালো করতে পারেন, তখন তারা তাদের কোম্পানিতে ক্রেতাদেরকে কমিউনিটিতে নিয়ে আসার জন্য এবং তাদের সাথে রিলেশনশিপ করার জন্য আপনার মত একজন ইনবাউন্ড মার্কেটার কে খুঁজে নিবে।

Advertisement

শুধুমাত্র ইনবাউন্ড মারকেটিং শিখে আপনি অনলাইন থেকে ভালো পরিমাণ অর্থ উপার্জন করতে পারবেন। এবং যেকোন কোম্পানিতে ইনবাউন্ড মার্কেটার হিসেবে চাকরি করতে পারবেন। কারণ এধরনের মার্কেটারদের চাহিদা অনেক বেশি। ইতিমধ্যে এধরনের মার্কেটারদের সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। তবে যতটুকু বৃদ্ধি পেয়েছে তার চাহিদার তুলনায় সামান্য।

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং

Advertisement

আপনি যদি মনে করে থাকেন ফেসবুক, টুইটার, ইউটিউব, এবং লিংকড এর মধ্যে পোস্ট করতে জানাটাকে সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং বলা হয়। তাহলে আমি আপনাকে বলব, আপনি যা জানেন তা টিক জানেন। তবে আপনার ধারণার মধ্যে অনেকটা পার্থক্য রয়েছে।

কারণ, যারা ফেসবুক ইউজ করে থাকে, তারা সবাই কিন্তু ফেসবুকে নিজেদের বিভিন্ন বিষয় শেয়ার করে থাকেন। তারাও যেহেতু পোস্ট করে তাদেরকে কিন্তু আপনি ফেসবুক মার্কেটার বলতে পারবেন না। যদি আপনাকে মার্কেটার হতে হয়, তাহলে অবশ্যই সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিংয়ের কৌশল গুলো আপনাকে শিখতে হবে। শুধুমাত্র ফেসবুক, টুইটার, লিঙ্কডইন, এবং ইউটিউবে পোস্ট করতে জানলে একজন সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটার হয়ে যাবেন এমনটা কিন্তু কখনও হবেনা।

একজন মার্কেটার হওয়ার জন্য আপনাকে যে সকল স্ট্র্যাটেজি গুলো অনুসরণ করতে হবে। সেগুলো যদি আপনি প্রোফাইলে অনুসরণ করতে পারেন, তাহলে আপনি একজন সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটার হিসেবে পরিচিতি লাভ করতে পারবেন। এক্ষেত্রে আপনাকে অবশ্যই এগুলো নিয়ে স্টাডি করতে হবে, তাহলে আর্থিক বিষয়গুলো সহজে বুঝতে পারবেন। পাশাপাশি আপনাকে জানতে হবে,

Advertisement
  • কিভাবে ক্রেতাদের সাথে এঙ্গেজ হবেন?
  • কিভাবে আপনার প্রোডাক্ট কেনার জন্য আগ্রহী করে তুলবে? এবং
  • তাদের সম্পর্কে কিভাবে রিচার্জ করবেন?
  • বিজ্ঞাপন কিভাবে দিবেন?

এই সকল বিষয়গুলো সম্পর্কে আপনাকে অবশ্যই জানতে হবে। সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিংয়ের মধ্যে কাস্টমার বিহেভিয়ার অনেকটা গুরুত্বপূর্ণ। যদি আপনি কাস্টমারের চরিত্র সম্পর্কে আপনি ভাল ধারণা অর্জন করতে পারেন, তাহলে যেকোনো কাস্টমারকে আপনি এমন কিছু কৌশল দেওয়ার মাধ্যমে সহজেই নিজের করে নিতে পারবেন। তাহলে আপনি যেকোনো পণ্য একজন কাস্টমারকে বিক্রয় করার সক্ষমতা রাখবেন।

ইমেল বিপণন

জানিনা কেন বাংলাদেশের মধ্যে ইমেইল মার্কেটিং এত জনপ্রিয় নয়। কিন্তু ইতিমধ্যে কিন্তু এটার জনপ্রিয় বৃদ্ধি পেতে শুরু করেছে আমি সেটা লক্ষ্য করতে পেরেছি। এজন্য আমি ইমেইল মার্কেটিং কে সবচেয়ে বেশি প্রাধান্য দেওয়ার জন্য আপনাদেরকে পরামর্শ দিচ্ছি। কারণ, ইমেইল মার্কেটিং হচ্ছে এমন একটি মার্কেটিং পদ্ধতি যেখানে আপনি ইমেইল সেন্ড করার মাধ্যমে সবচেয়ে বেশি আউটপুট পাবেন।

যারা ইমেইল মার্কেটিং সঠিকভাবে বুঝতে পারে। এবং টার্গেটেড ইমেইল গুলো সংগ্রহ করতে পারে। তারা কিন্তু খুব কম পরিশ্রম করার মাধ্যমে বেশি পণ্য বিক্রয় করতে পারেন। মনে রাখবেন, আপনি যত বেশি পণ্য বিক্রয় করতে পারবেন, তত বেশি আপনার প্রফিটের অংশটা বৃদ্ধি পাবে। তার মানে আপনি বিক্রি করতে পারলে কিন্তু আপনার কোম্পানি একটি উন্নত অবস্থানে এগিয়ে যাবে।

সুতরাং আপনার অবশ্যই ইমেইল মার্কেটিং সম্পর্কে অভিজ্ঞতা অর্জন করতে হবে। যদি আপনি ইমেইল মার্কেটিং সম্পর্কে আরো বিস্তারিত জানতে চান, তাহলে আমাদেরকে কমেন্ট করে জানাতে পারেন।

Advertisement

যেন আমরা আপনাদের সাথে ইমেইল মার্কেটিং সম্পর্কে আরও কিছু তথ্য শেয়ার করতে পারি। ইতিমধ্যে আমরা আমাদের বিডি ব্লগের ওয়েবসাইটে ইমেইল মার্কেটিং সম্পর্কে অনেকগুলো আর্টিকেল প্রকাশ করেছি। আপনারা যদি ইমেইল মার্কেটিংয়ের জনপ্রিয় টুলস সম্পর্কে জানতে চান, তাহলে এখান থেকে আপনারা শিখতে পারেন।

কারণ আমরা আমাদের এই ওয়েবসাইটে মার্কেটিং সম্পর্কে ইতিমধ্যে অনেকগুলো টিউটোরিয়াল প্রকাশ করেছি। যেগুলো আপনাদের কে অনেক বেশি সাহায্য করবে ডিজিটাল মার্কেটিং শেখার জন্য। আপনি যদি আমাদের মার্কেটিং ক্যাটাগরিটি ভিজিট করেন, তাহলে অবশ্যই এধরনের তথ্য বহুল আর্টিকেল পেয়ে যাবেন।

যেগুলো আপনারা অন্য কোথাও পাবেন না। আমরা যেভাবে সহজে আপনাদের জন্য কনটেন্টগুলো তৈরি করেছি। আশা করছি এই সকল কনটেন্ট আপনাদেরকে সাহায্য করবে। আপনাদের সাহায্য করার মাধ্যমে কিন্তু আমরা সফলতা অর্জন করতে সক্ষম হবো। আমাদের ব্লগের পাঠক আমাদের সম্পদ। আমরা পাঠকদেরকে সব সময়ের মূল্যায়ন করতে পছন্দ করি।

ডিজিটাল বিপণন বিশ্লেষণ সরঞ্জামসমূহ

ডিজিটাল মার্কেটিং করার জন্য অনেকগুলো জনপ্রিয় টুল রয়েছে। যেগুলো ব্যবহার করে আপনাকে বিভিন্ন ডাটা এনালাইসিস করতে হবে। এবং ডাটাগুলো এনালাইজ করার মাধ্যমে সেখান থেকে তথ্য সংগ্রহ করতে হবে। যে তথ্যগুলো আপনাকে পরবর্তীতে মার্কেটিংয়ের কাজে সাহায্য করবে। এবং আপনারা ক্রেতাদের চরিত্র সম্পর্কে জানতে পারবেন।

Advertisement

কারণ, একজন ক্রেতার চরিত্র সম্পর্কে যদি আপনি ভাল অভিজ্ঞতা অর্জন করতে পারেন, তাহলে কিন্তু যেকোনো ক্রেতার সাথে আপনি বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক তৈরি করতে পারবেন। এজন্য আপনাকে অবশ্যই বিভিন্ন মার্কেটিংয়ের টুল ব্যবহার শিখতে হবে। অনেকগুলো অংশ রয়েছে যে অংশগুলো সম্পর্কে আপনারা যদি আগ্রহ প্রকাশ করেন। এই সকল মার্কেটিং টুলস সম্পর্কে আমরা পরবর্তীতে একটি ব্লগ আর্টিকেল প্রকাশ করবো।

যদি আপনারা এবিষয়ে আগ্রহী হয়ে থাকেন, তাহলে অবশ্যই আমাদেরকে কমেন্ট করে জানিয়ে দিবেন। যেন আমরা ডিজিটাল মার্কেটিং টুলস সম্পর্কে আরেকটি আর্টিকেল প্রকাশ করতে পারি। যেখানে আমরা ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের সকল টুলস নিয়ে যথাসম্ভব আলোচনা করার চেষ্টা করব।

আশা করছি আপনারা ডিজিটাল মারকেটিং টুলস সম্পর্কে জানার আগ্রহ প্রকাশ করলে খুব দ্রুত আমরা একটি ব্লগ প্রকাশ করব। সুতরাং এখানে আমাদের ডিজিটাল মার্কেটিং শেখার উপায় সম্পর্কে বিস্তারিত বিষয় এর সমাপ্তি ঘোষণা করতে যাচ্ছি।

ডিজিটাল মার্কেটিং শেখার উপায় সম্পর্কে শেষ কথা

প্রিয় পাঠক, আমরা যথাসম্ভব চেষ্টা করেছি। কিভাবে ডিজিটাল মার্কেটিং শিখতে পারেন? সে সম্পর্কে আপনাদেরকে সাহায্য করার জন্য। আশা করছি, এই আর্টিকেলের মধ্যে আপনারা ডিজিটাল মার্কেটিং শেখার উপায় জানতে পেরেছেন। যদি আপনাদের কোনকিছু অজানা থাকে, সে বিষয়ে আমাদেরকে প্রশ্ন করতে পারেন। আমরা আপনাদেরকে অবশ্যই সকল প্রশ্নের উত্তর দিয়ে সাহায্য করবো।

Advertisement

প্রশ্ন করার জন্য নিচের কমেন্ট বক্স ব্যবহার করতে পারেন, অথবা আপনারা সরাসরি আমাদেরকে ফেসবুকে মেসেজ করতে পারেন। আমরা চেষ্টা করব আপনাদেরকে যথাসম্ভব সুন্দরভাবে রিপ্লাই দিয়ে সঠিক তথ্য প্রদান করার জন্য। যেন আপনারা আমাদের ব্লগ সাইট থেকে ভালোভাবে শিখতে পারেন। আজকের লেখা এখানে শেষ করতে যাচ্ছি। যদি আপনাদের ভাল লাগে অবশ্যই এই লেখাটির লিংক আপনারা আপনাদের সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করতে পারেন।

আমাদেরকে এই লিংকটা শেয়ার করে আপনারা সাহায্য করতে পারেন। যেন আপনার বন্ধুরাও এখান থেকে শিখতে পারে সে সুযোগটা আপনারা করে দিবেন। আশা করছি, আপনি অনেক ভাল একজন মানুষ যাকে আমরা আমাদের ব্লগের পাঠক হিসেবে পেয়েছি। আপনার জন্যও শুভকামনা রইল।

bdbloq site icom

একজন ইলেক্ট্রিক্যাল বিষয়ে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে সবসময় টেকনোলজি কে অগ্রাধিকার দিতে ভালোবাসি। প্রযুক্তির সাথে এগিয়ে যেতে ও নিজেকে সবসময় আপডেট রাখার জন্য নিয়মিত প্রযুক্তিগত জ্ঞান নিজে অর্জনের পাশাপাশি অন্যদের সাথে শেয়ার করাতে ভালো লাগে। সময় পেলে প্রযুক্তি, ব্যবসা, মার্কেটিং বিষয়ে লিখতে চেষ্টা করি। পেশা যাই হোক, তা হতে লাভবান হতে চাইলে ব্যবসা ও মার্কেটিং জ্ঞান আবশ্যক।

বাক্সে আপনার মতামত লিখে জানান