অনলাইন ইনকাম সাইট

অনলাইন ইনকাম সাইট: বেশকিছু অনলাইনে আয় করার সাইট

Advertisement

সবাইকে স্বাগতম জানিয়ে আজকের বিষয় শুরু করছি। আশাকরি, সবাই ভাল আছেন। আজকে আপনাদের সাথে আমি যে বিষয় নিয়ে আলোচনা করতে যাচ্ছি সেটা হল “ অনলাইন ইনকাম সাইট ”। বাংলাদেশসহ সারাদেশ যে সকল সাইটে লক্ষ লক্ষ টাকা মানুষ ইনকাম করছে সেই সকল সাইটের সাথে আজ আমি আপনাদের পরিচয় করিয়ে দেবো।

অনলাইন ইনকাম সাইট নিয়ে জানতে সম্পূর্ণ পড়ুন –

অনলাইনে কাজ করার জন্য বিশ্বস্ত ওয়েবসাইটগুলোর পরিচয় খুবই গুরুত্বপূর্ণ। যারা নতুন অনলাইনে এসে কাজ করার চেষ্টা করে। তারা বিশ্বস্ত ওয়েবসাইট গুলো খুজে  না পেয়ে বিভিন্ন ওয়েবসাইটে কাজ করতে শুরু করে। যার ফলে পরবর্তীতে তাকে ধোঁকা খেতে হয়। আজকে আমি আপনাদের সাথে যে সকল ওয়েবসাইট গুলো শেয়ার করবো এগুলো সব প্রফেশনাল ওয়ার্কারদের ওয়েবসাইট।  এগুলোতে আপনি কোনো চিন্তা ছাড়াই কাজ করতে পারেন এবং এখানে আপনি প্রফেশনালি যেকোনো সার্ভিস প্রোভাইড করতে পারেন। 

অনেক প্রতারক টাকার লোভে বিভিন্ন ফেইক ওয়েবসাইট ও অ্যাপ প্রমোট করে থাকে।  আপনি যখন কোন ওয়েবসাইট থেকে আর্টিকেল পড়ে অনলাইনে কাজ শুরু করবেন। অবশ্যই আপনি বিশ্বস্ত ওয়েবসাইটগুলোর সন্ধান পাবেন। বিডি ব্লগ ওয়েবসাইট কখনো আপনাদের জন্য পেইড অ্যাপ ওয়েবসাইট নিয়ে টাকার লোভে আর্টিকেল পাবলিশ করে না।

ফেক ওয়েবসাইট বা অ্যাপ গুলো কি ধরনের হতে পারে?

সাধারণত ফেক ওয়েবসাইটগুলোতে এক ক্লিকে ১০০ টাকা বা ক্লিকে ৫ টাকা ইনকাম করার বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা লোভনীয় অফার দেখানো হয়। এই লোভনীয় অফার গুলো দেখে তারা তাদের বিজ্ঞাপনগুলোতে ইউজারদেরকে ক্লিক করার জন্য আগ্রহী করে তুলে।  তাদের ওয়েবসাইটে ফের বিজ্ঞাপনগুলোতে যত বেশি পড়বে তত বেশি ইনকাম করতে পারবেন।  তারা এভাবে একটি অ্যামাউন্ট ইউজারদের ঠকিয়ে ইনকাম করে ফেলে। 

যদি তারা আপনাকে পেমেন্ট করে তাহলে তাদের কাছে কোন টাকা থাকবে না কারণ বিজ্ঞাপন থেকে যে টাকা ইনকাম হয় তা দিয়ে অন্যজনকে  প্রতি ক্লিকে ৫ থেকে ৬ টাকা পেমেন্ট দেওয়া কখনো সম্ভব নয়। 

এই রকম আরো প্রচুর সাইট এখনো অনলাইনে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে।  যে ফাঁদে এখনো বেশির ভাগ লোক কাজ করতে আগ্রহী হচ্ছে। কারণ এই সকল কাজে কম কষ্টে এবং কম সময়ে বেশি টাকার লোভ দেখানো হয়। আর এমন ভাবে বিষয়গুলো উপস্থাপন করা হয় যা দেখে মানুষ মনে করে যে আসলেই এটা রিয়েল কোন ব্যবসা।

এরা মাত্র ৩০ মিনিটের মত কাজ করিয়ে ১০ থেকে ২০ ডলারেরও বেশি অফার করে থাকে। ফলে সব মানুষই হুমড়ি খেয়ে লেগে যায় এই কাজ করতে। কিন্তু কখনো চিন্তা করে না যে, কেন তারা এত অল্প সময়ে এত টাকা দেবে।

আচ্ছা একটা কথা বলি। পৃথিবীতে এমন কোন কাজ নেই যে কাজে কষ্ট নেই।

কারণ, কষ্ট না করেই যদি হিউজ টাকা ইনকাম করা যেত,তাহলে পৃথিবীর সবাই বড়লোক হয়ে যেত। কেন বোঝেন না এই কথা। একটা কথা আমি বার বারই বলি যে, স্বল্প কষ্টে অর্জিত আয় দীর্ঘস্থায়ী হয় না।

Advertisement
বেশকিছু অনলাইন ইনকাম সাইট
বেশকিছু অনলাইন ইনকাম সাইট

আশেপাশে যারা কম পরিশ্রমে কোটি কোটি টাকার মালিক হচ্ছে, তাদের দিকে একটু ভাল করে খেয়াল করে দেখবেন যে, তারা কত ধরনের রোগে ভুগছে। কারণ, যারা যেভাবে টাকা ইনকাম করে, তাদের টাকা ঠিক সেই ভাবেই শেষ হয়ে যায়।

তাই আপনাদের কাছে আমি অনুরোধ করছি, লোভে পড়ে প্রতারণার ফাঁদে পা না দিয়ে পরিশ্রম করুন। তাহলে কিছু করতে পারবেন।

তো অনেক জ্ঞানই দিয়ে ফেললাম। এখন আসল বিষয়ে ফেরা যাক। এখানে আমরা যে সকল ওয়েবসাইট নিয়ে আলোচনা করেছি অনলাইন থেকে আয় করার জন্য। এই সাইট গুলোতে অবশ্যই কাজ করার জন্য আপনার সামান্য দক্ষতা প্রয়োজন হতে পারে।  কেননা এগুলো হচ্ছে প্রফেশনাল ওয়ার্কারদের কাজ করার ওয়েবসাইট।  এগুলোতে  আপনি নিজের দক্ষতা কে ব্যবহার করে সার্ভিস প্রোভাইড করবেন এবং এখান থেকে অর্থ উপার্জন করতে পারবেন। 

অনলাইন ইনকাম সাইট

অনলাইনে অনেক রিয়েল সাইট আছে। যেখানে আপনি হিউজ পরিমাণ কাজ পাবেন। আর সেখান থেকে আপনি রিয়েল ভাবে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। তবে আপনি যদি লোভী হন, তাহলে আমি আপনাকে বলবো এই সকল সাইট আপনার জন্য নয়। কারণ এই সকল সাইটে টাকা ইনকাম করতে অনেক সময়ের সাথে সাথে অনেক দক্ষতার দরকার পড়ে। নিজেকে প্রমাণ করতে হয়। তারপর ক্লায়েন্ট খুশি হলে কাজ দেয়।

আমি নিচে কিছু রিয়েল অনলাইন ইনকাম সাইট এর নাম ও সে সাইট থেকে কি কাজ পাওয়া যায় এবং কিভাবে ইনকাম করা যায় সেগুলো নিয়ে আলোচনা করলাম।

ফ্রিল্যান্সার (Freelancer.com)

ফ্রিল্যান্সার একটি বিশ্বস্ত সাইট। যে সাইট ২০১২ সাল থেকে এখন পর্যন্ত নিষ্ঠার সাথে কর্মসংস্থানের সুযোগ করে দিচ্ছে লক্ষ লক্ষ মানুষদের। অনেকেই ফ্রিল্যান্সার সাইটের নাম শুনেছেন। কারণ অনলাইনে কাজ করতে গেলে এই সাইট সম্পর্কে আপনার জানা লাগবেই।

মূলত এই সাইটে দুই ধরনের লোকের থাকে। প্রথমত যারা কাজ করাতে আসে। আর দ্বিতীয়ত যারা এই সাইটে সেই সকল কাজ করার জন্য আসে। এখানে হিউজ পরিমাণ লোক এক্সপার্টদের দিয়ে তাদের কাজ করিয়ে নেওয়ার জন্য ভিড় করে। বিনিময়ে তারা অনেক অর্থ প্রদান করে।

এখানে বিভিন্ন মূল্যের কাজ পাওয়া যায়। যে কাজের যেমন মূল্য ঠিক তেমন মূল্যই আপনি পাবেন। কিন্তু এখানে কাজ করতে হলে আপনাকে অনেক বেশি এক্সপার্ট হতে হবে। তা না হলে কাজ পাবেন না। এখানে সবাই স্বাধীন ভাবে কাজ করতে পারে। যেহেতু অনলাইন কাজ সেহেতু ঘরে বসেই কাজ করা হয়।

যার ফলে প্রচুর পরিমাণ লোক এখানে কাজের জন্য ভিড় করে। তাই সবার সাথে কম্পিটিশন করে কাজ পেতে হলে অনেক বেশি এক্সপার্ট না হলে কাজ পাওয়া সম্ভব না।

Advertisement

freelancer.com এ কাজ করতে যা করতে হবে:

প্রথমে আপনাকে freelancer.com যেয়ে একটি অ্যাকাউন্ট খুলতে হবে। অ্যাকাউন্ট খোলার সময় নিজের অরিজিনাল নাম ব্যবহার করতে হবে। বার্থ সার্টিফিকেট বা একাডেমিক কোন সার্টিফিকেটে যে নাম ব্যবহার করা হয়েছে সেই নাম ইউজ করবেন। তারপর নিজের অরিজিনাল অ্যাড্রেস সহ যাবতীয় সকল ইনফরমেশন এখানে দিয়ে সাবমিট করতে হবে। সকল কিছুর বানান ঠিক মত দিবেন।

তারপর প্রোফাইল সুন্দর করে সাজাতে হবে। প্রোফাইলে নিজের সুন্দর একটি ছবি দিতে হবে। প্রোফাইল সুন্দর না হলে অনলাইন ইনকাম সাইট থেকে কাজ পাওয়ার সম্ভাবনা থাকে না। কারণ এই সাইটে প্রোফাইলই প্রমাণ করে দেয় যে, সে কোন টাইপের কাজ পারে এবং কেমন পারে।

পারফেক্ট ভাবে প্রোফাইল সাজানো হয়ে গেলে এবার বিভিন্ন ধরনের কাজ ভিজিট করে দেখতে হবে। তবে আপনি যে কাজে বেশি অভিজ্ঞ সেই কাজই করা ভাল। কারণ এখানে কাজের মান ভাল না হলে আপনাকে তারা নেগেটিভ রিভিউ দিবে। ফলে এতে করে আপনার কাজ পাওয়ার সম্ভাবনা কমে যাবে।

freelancer এ যে সকল ধরনের কাজ পাবেন:

এখানে ওয়েবসাইট ডিজাইন, গ্রাফিক্স ডিজাইন, ওয়েবসাইট ডেভেলপমেন্ট, অডিও-ভিডিও প্রোডাকশন, কনটেন্ট রাইটিং, অ্যানিমেশন, ফটোগ্রাফী, ডাটা এট্রি ইত্যাদি হাজার হাজার কাজ পাওয়া যায়। আপনাকে শুধু নিজের মত করে কাজ করতে হবে। বেছে নিতে হবে আপনি আসলে কোন কাজে বেশি পারদর্শী।

ফ্রিল্যান্সার.কম থেকে যেভাবে টাকা পাবেন:

Advertisement

যখন আপনি কোন কাজ কমপ্লিট করবেন। তখন সেই কাজের টাকা আপনার নিজের ফ্রিল্যান্সার অ্যাকাউন্টেই অ্যাড হয়ে থাকবে। তারপর ফ্রিল্যান্সার সাইট যে সকল পেমেন্ট ম্যাথড সাপোর্ট করে সেই সকল ম্যাথডের মাধ্যমে টাকা তুলতে পারবেন। তবে বেশির ভাগ লোকই পেপাল অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করে থাকে টাকা তোলার জন্য। এছাড়া পেওনিয়ার, স্ক্রিল ও ব্যাংক ট্রান্সফার সিস্টেমেও টাকা তোলা যায়।

আপ-ওয়ার্ক (Upwork.com)

আপ-ওয়ার্ক ফ্রিল্যান্সার সাইটের মতই। এটিও অনেক বছর যাবৎ সততার সাথে কাজের সুযোগ করে দিয়ে আসছে লক্ষ লক্ষ মানুষদের। এখানেও বিপুল পরিমাণে কাজ পাবেন। জনপ্রিয়তার দিক থেকে আপ-ওয়ার্কও শীর্ষে অবস্থান করছে।

প্রথম দিকে যখন এই সাইটটি শুরু করা হয় তখন এটি ওডেক্স নামে পরিচিত ছিল। প্রথমে ওডেক্স নামেই কার্যক্রম শুরু করেছিল এই সাইটি। কিন্তু কিছু দিন পর এটি নাম পরিবর্তন করে আপ-ওয়ার্ক নাম দেওয়া হয়। ২০১৫ সালে এই নামটি দেওয়া হয়। ঐ সময় ইল্যান্স নাম করে আরেকটি অনলাইন ইনকামের সাইট ছিল।যা পরে এই আপ-ওয়ার্কের সাথে এক হয়ে যায়।

আপ-ওয়ার্কে যেসকল কাজ করতে পারবেন:

অনলাইন ইনকাম সাইট থেকে ইনকাম করার জন্য এটা আমার বেশি ভালো লাগে। এখানে গ্রাফিক্স ডিজাইন, ওয়েবসাইট ডিজাইন, ডাটা এন্ট্রি, ওয়েবসাইট ডেভেলপমেন্ট সহ হরেক রকমের কাজ জমা আছে এই সাইটে। এখানে আপনি ফিক্সড রেটে কাজ পাবেন। আবার আপনি চাইলে ঘন্টা ভিত্তিক চুক্তিতেও কাজ করতে পারবেন। তবে ঘন্টা ভিত্তিক কাজ করতে হলে আপনাকে অনেক বেশি দক্ষতা সম্পন্ন হতে হবে।

কিভাবে আপ-ওয়ার্কে একাউন্ট করবেন?

এখানেও অ্যাকাউন্ট খোলার জন্য upwork.com এ যেয়ে নিজের অরিজিনাল নাম ব্যবহারের পাশাপাশি সকল বায়োডাটাই সঠিক দিতে হবে। তারপর নিজের মত করে সুন্দরভাবে প্রোফাইল সাজাতে হবে। কাজ শেষে টাকা নিজের আপ-ওয়ার্ক অ্যাকাউন্টেই অ্যাড হবে। পরে সেটা পেপাল, পেওনিয়ার, ব্যাংক ট্রান্সফার সিস্টেমে তোলা যাবে।

Advertisement

ফাইভার (Fiverr.com)

অনলাইন ইনকাম সাইট থেকে ইনকাম করার জন্য আরেকটি জনপ্রিয় সাইট হচ্ছে ফাইভার। বিপুল কাজের সমাহার এখানে। ফাইভারে মূলত ৫ ডলার থেকে শুরু করে অনেক ডলার পর্যন্ত কাজের মূল্য থাকে।

ফাইভারে যেসকল কাজ করতে পারবেন:

এখানে সকল কাজের জন্যই ফিক্সড মূল্য দিয়ে থাকে। ঘন্টা ভিত্তিক কাজের অফার এখনো এখানে অ্যাড হয়নি। এখানে অনেক সময় বায়াররা কাস্টমারদের খুঁজে খুঁজে কাজের অফার করে থাকে। কন্টেন্ট লেখা, ডাটা এন্ট্রি, লোগো ডিজাইন, ভয়েস রেকর্ড ইত্যাদি কাজ সহ আরো অনেক ধরনের কাজ এখানে পাবেন আপনি।

fiverr.com এ যেভাবে রেজিষ্ট্রেশন করবেন:

fiverr.com এ যেয়ে সাইন আপ এ ক্লিক করে সেখানে যে সকল তথ্য চাইবে সেই সকল তথ্য দিয়ে অ্যাকাউন্ট খুলতে হবে। তারপর প্রোফাইল সাজিয়ে কাজ দেখে কাজ করতে হবে নিজের দক্ষতার ভিত্তিতে। টাকা তোলার ক্ষেত্র প্রায় একই রকমই হয়ে থাকে। পেপাল, পেওনিয়ার, ব্যাংক ট্রান্সফার দিয়ে উইথড্র করতে পারবেন।

পিপল পার আওয়ার (PeoplePerHour.com)

ফ্রিল্যান্সার, ফাইভার, আপ-ওয়ার্ক এরই মত জনপ্রিয় একটি সাইট হচ্ছে পিপল পার আওয়ার। এখানেও বিপুল কাজ পাবেন। এখানেও আপনার নিজের যোগ্যতা থাকতে হবে। যোগ্যতা ছাড়া কাজ পাওয়া যাবে না। এখানে ফ্রিক্সড ও ঘন্টা ভিত্তিক কাজ পাওয়া যায়।

যুক্তরাজ্য ও লন্ডন ভিত্তিক এই সাইটে টাকা তোলার জন্য পেপাল, পেওনিয়ার ও ব্যাংক ট্রান্সফার পদ্ধতি ব্যবহার করতে হয়। এখানেও অ্যাকাউন্ট খুলে সাজাতে হয় ভাল করে। অ্যাকাউন্ট খোলার জন্য peopleperhour.com তে যেয়ে তথ্য দিয়ে সাইন আপ করতে হবে।

ওয়েব ডিজাইন থেকে শুরু করে গ্রাফিক্স ডিজাইন, ওয়েব ডেভেলপমেন্ট সহ প্রায় অনলাইন ভিত্তিক সকল কাজই আছে এখানে।

গুরু (Guru.com)

গ্রাফিক্স ডিজাইন, ডাটা এন্ট্রি, রাইটিং, ট্রান্সলেট, অফিস এপ্লিকেশন ইত্যাদি ধরনের কাজ সহ অনেক কাজ পাওয়া যাবে এখানে। এটি একটি আমেরিকান সাইট। এখানেও নিজের নামে অ্যাকাউন্ট খুলে কাজ করতে হবে।

guru.com এ যেয়ে সাইন আপ এ ক্লিক করে ফর্ম পাওয়া যাবে। সঠিক ভাবে ফর্মটি পূরণ করে প্রোফাইল সাজিয়ে কাজ করতে হবে। পেপাল, ব্যাংক ট্রান্সফার, পেওনিয়ারের পদ্ধতিতে টাকা তোলা যাবে।

নাইনটি নাইন ডিজাইনস (99Designs.com)

এটিও খুবই বিশ্বস্ত একটি সাইট। অনেক বছর ধরে ভাল ভাবে সার্ভিস দিয়ে যাচ্ছে। এখানেও ঐ একই রকম কাজ পাবেন। তবে মূলত এখানে ডিজাইনের কাজ বেশি থাকে। এটি যুক্তরাষ্ট্রের সান ফ্রানসিস্কোর একটি কোম্পানি।

Advertisement

গ্রাফিক্স ডিজাইন, ওয়েবসাইট ডিজাইন, ওয়েব ডেভেলপমেন্ট সহ আরো অনেক কাজ আছে এখানে। আপনি যদি ডিজাইনে কাজ করতে চান তাহলে নাইনটি নাইন হবে আপনার জন্য বেস্ট সাইট।

অ্যাকাউন্ট খোলা খুবই সহজ। প্রথমে 99designs.com এ যেয়ে সাইন আপ এ ক্লিক করে ফর্ম ফিল আপ করে প্রোফাইল ক্রিয়েট করে কাজ করা শুরু করতে হবে। অনলাইন ভিত্তিক প্রায় সকল কাজ করতে পারবেন। অন্যান্য সাইটের মতই এই সাইটের টাকাও একই ভাবে তুলতে পারবেন।

মাইক্রোওয়ার্কারস (Microworkers.com)

মাইক্রোওয়ার্কারস হচ্ছে ভিন্ন ধর্মী একটি অনলাইন ইনকাম সাইট । এখানে মূলত ছোট ছোট বাজেটের কাজ পাওয়া যায়। তাছাড়া এখানের কাজের ধরণও আলাদা। এখানে আপনি আপনার ইচ্ছামত বেছে বেছে কাজ করতে পারবেন। আর এই সকল কাজ আপনার জন্যই রাখা হবে। এখানে কাজ খোঁজা লাগবে না।

অনলাইন ইনকাম সাইট –

কাজ সবার জন্যই ফিক্সড করা থাকে। তবে প্রতিটা কাজের এক একটা লিমিট থাকে। মানে একটি কাজ টোটাল কত জন করতে পারবে এবং কত টাইমের ভিতর করতে হবে। একটি কাজ টোটাল কত জন করেছে সেটা সেই কাজের সামনে উল্লেখ করা থাকে। তাই টিমিট শেষ হওয়ার আগে আপনাকে কাজ করতে হবে।

তা না হলে ঐ কাজ শেষ হয়ে যাবে। ফলে আর কেউ করতে পারবে না। তবে চিন্তার কোন বিষয় নেউ। নতুন করে আরো অনেক কাজ আসবে। এখানে যে সকল কাজ থাকে সকল কাজই খুব সহজ। তাই খুব বেশি দক্ষতার প্রয়োজন হয় না এখানে কাজ করার জন্য। সামান্য কিছু বেসিক ধারণা থাকলেই কাজ করা যায়।

Microworkers এ যেসব কাজ করতে পারবেন:

এই যেমন- জিমেইল খোলা, ইউটিউব চ্যানেল খোলা, ফেসবুকে কমেন্ট করা, ইইউটিউব ভিডিওতে কমেন্ট করা, ভিডিও দেখা, ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করা, বিভিন্ন মোবাইল বা কম্পিউটারের সফটওয়ার ডাউনলোড করে ইনস্টল করা ইত্যাদি সহজ সহজ কাজ রয়েছে এখানে।

কাজের ধরন দেখে নিশ্চয়ই বুঝে গেছেন যে অনেক সহজ কাজ পাওয়া যায় এখানে। তাই এখানে যে কেউ কাজ করে ইনকাম করতে পারে। এখানে একটি কাজ করতে হলে সেই কাজ শেষ করে তার প্রমাণ পাঠাতে হয় ঐ কাজের মালিককে। ঐ প্রমাণ দেখে মালিক চেক করে কাজ ঠিক মত হলেই আপনাকে পেমেন্ট করবে।

পেমেন্ট নিয়ে ভয় নেই। কাজ ঠিক ঠাক হলে পেমেন্ট অবশ্যই পাবেন আপনি। কারণ এটি একটি বিশ্বস্ত সাইট। প্রচুর পরিমাণ লোকজন এখানে কাজ করে।

যেভাবে microworkers.com এ রেজিষ্ট্রেশন করবেন:

প্রথমে microworkers.com এ যেয়ে সাইন আপ এ ক্লিক করে ইনফরমেশন ফর্মে ইনফরমেশন গুলো দিয়ে মোবাইল নাম্বার দিতে হবে। মনে রাখবেন, এখানে মোবাইল নাম্বার ভেরিফিকেশন না করলে কোন কাজই পাবেন না।

Advertisement

আপনার ইনকাম মিনিমাম ২ ডলার হতে হবে টাকা তোলার জন্য। যখন এই মাইক্রোওয়ার্কারসে ২ ডলার হয়ে যাবে। তখন একটি লেটার পাঠাবে আপনার ঠিকানায়। যেখানে একটি পিন নাম্বার থাকবে। সেই পিন নাম্বার আপনার অ্যাকাউন্টে সাবমিট করার পরই আপনি টাকা তুলতে পারবেন।

এই রকম আরো অনেক সাইট আছে অনলাইন জগতে। তবে রিয়েল সাইট খুঁজে নিতে হবে।

বিল্যান্সার (BeLancer.com)

বাংলাদেশি একটি অনলাইন ইনকাম সাইট হচ্ছে বিল্যান্সার। এটি শুধু মাত্র বাংলাদেশী ফ্রিল্যান্সারদের জন্য। এখানে খুব অল্প টাকার কাজ থেকে শুরু করে অনেক বেশি টাকার কাজ পাবেন। বাংলাদেশী হিসাবে আপনি আপনার অনলাইন ক্যারিয়ার বিল্যান্সারে অ্যাকাউন্ট খুলে শুরু করতে পারেন।

অনলাইন ইনকাম সাইট

Advertisement

এখানে শুধু মাত্র ফিক্সড মূল্যের কাজ পাবেন। এখন এই সাইটে শুধু মাত্র বাংলাদেশী ফ্রিল্যান্সার থাকলেও বাইরের ক্লায়েন্টও আনার চেষ্টা চলছে। যেহেতু বাংলাদেশী সেহেতু আপনি চাইলে এদের অফিসে যেয়েও খোঁজ খবর নিয়ে সাইটটি সম্পর্কে ভাল ভাবে জানতে পারবেন। কারণ এটি অনেক বিশ্বস্ত একটি সাইট।

এখানে আপনার কাজের টাকা খুব সহজেই তুলতে পারবেন। বিকাশের মাধ্যমে আপনি টাকা তুলতে পারবেন। তাছাড়া সরাসরি এদের অফিসে যেয়েও টাকা নিয়ে আসতে পারবেন। এছাড়া ব্যাংক সিস্টেম তো আছেই।

Advertisement

নিচের বাক্সে আপনার মতামত লিখে জানান।