বাংলাদেশের জন্য বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা আইডিয়া

বাংলাদেশের জন্য বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা আইডিয়া

Advertisement

বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা আইডিয়া তালিকা। ২০২১ সালে বাংলাদেশের ক্ষুদ্র ব্যবসায়িকদের জন্য এগুলো খুবই প্রয়োজন মনে করছি। তাই এই নিবন্ধে, আমি আপনাদের সাথে এমন ৫০টি ক্ষুদ্র ও লাভজনক ব্যবসা আইডিয়া নিয়ে আলোচনা করতে যাচ্ছি।

বাংলাদেশে শুরু করার মতো প্রচুর ব্যবসায়িক ধারণা পাওয়া যায়। যা আমাদের মনে সহজে আসে না। এজন্য আমরা চাইলেও কোনো লাভজনক ব্যবসা শুরু করতে পারি না। আজকে আমি আপনার সাথে ২০২১ সালের জন্য বাংলাদেশের একটি ক্ষুদ্র ও লাভজনক ব্যবসা আইডিয়া হিসাবে শুরু করার জন্য সবচেয়ে লাভজনক, সহজ এবং সফল ব্যবসা নিয়ে আলোচনা করবো।

বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা আইডিয়া তালিকা:

বর্তমানে নতুন একটি ছোট ব্যবসা শুরু করার জন্য বাংলাদেশ একটা সেরা সময় পার করছে। বাংলাদেশী তরুণ উদ্যোক্তারা চাকরি না করে একটি ছোট ব্যবসা শুরু করতে অত্যন্ত আগ্রহী।কিন্তু তারা কি ধরনের বিজনেস শুরু করতে পারেন তা নিয়ে ভালো আইডিয়া না পেয়ে হতাশ হয়ে পড়েন। আসলে এটার জন্য হতাশার কোনো কারণ নেই। একটি ব্যবসা দ্রুত শুরু করাটা বাংলাদেশের অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে স্পষ্টতই দুর্দান্ত উদ্যোগ।

বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা আইডিয়া
বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা আইডিয়া

বাংলাদেশের গার্মেন্টস শিল্প, পোল্ট্রি শিল্প, চা শিল্প, চামড়া শিল্প, সমুদ্রের মাছের শিল্প এবং সাম্প্রতিক সময়ে অনলাইন ব্যবসায়গুলো বাংলাদেশের বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা। এখন আমরা বাংলাদেশের জন্য ক্ষুদ্র ও লাভজনক ব্যবসা আইডিয়া সম্পর্কে জেনে নিই।

বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা –

আমরা যেসকল আইডিয়া আপনাদের সাথে আজকে শেয়ার করছি। এসবগুলোই ভালো আইডিয়া। এগুলো সত্যিই অসাধারণ হবে আপনাদের জন্য। তবে আপনি কখনও একাধিক আইডিয়া নিয়ে একসাথে কাজ করার প্ল্যান করবেন না।

ছোট স্কেলে সুপার শপ ব্যবসা:

একটি ক্ষুদ্র আকারের সুপার শপ ব্যবসা বাংলাদেশের মধ্যে লাভজনক ব্যবসায়িক আইডিয়া৷ একটা উপযুক্ত অবস্থান এই ব্যবসায়ের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ। একটি ব্যস্ত আবাসিক অঞ্চল হ’ল এই বিজনেস শুরু করার উপযুক্ত জায়গা।

৪৫০ থেকে ৫০০ বর্গফুট স্পেস নিয়ে একটি ছোট সুপার শপ শুরু করার জন্য উপযুক্ত। এই ব্যবসায় আপনাকে সহায়তার জন্য আপনি একজন বা দু’জন কর্মচারী নিযুক্ত করতে পারেন। একা একা এই বিজনেস পরিচালনা করা কঠিন হবে।

এই বিজনেস শুরু করতে বিনিয়োগ করার প্রয়োজন হতে পারে ১,০০০,০০০ টাকা পর্যন্ত।

আপনার এই ব্যবসাকে আরও লাভজনক করতে ঘরোয়া ডেলিভারির সুযোগ রাখতে পারেন। এতে করে আপনার অতিরিক্ত ইনকাম তৈরি হবে। বর্তমানে সবাই ঘরে বসে বাজার করতে পছন্দ করেন। নিজেকে সুস্থ রাখার জন্য ক্রেতারা এমন সুযোগ হাত ছাড়া করতে চান না। ঠিক আপনিও ক্রেতাদের এমনকিছু সুযোগ উপহার হিসেবে দিয়ে মন জয় করে নিতে পারেন।

ফ্যাশন হাউস নিয়ে বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা আইডিয়া:

বর্তমানে ফ্যাশন হাউস ব্যবসা বাংলাদেশে খুব উপযুক্ত ব্যবসা। ফ্যাশন হাউস ব্যবসা শুরু করার আগে আপনার কিছু পরিকল্পনা করা উচিত। বাংলাদেশে এই লাভজনক ব্যবসা শুরু করার জন্য একটি নিখুঁত ব্যবসায়িক পরিকল্পনা প্রয়োজন। সুপার শপ ব্যবসায়ের মতো, সর্বনিম্ন বিনিয়োগ হয় ১,০০০,০০০ টাকা পর্যন্ত লাগতে পারে এই বিজনেস শুরু করতে। অবস্থান এই ব্যবসায় সাফল্যের মূল চাবিকাঠি।

Advertisement

এটি শুরু করার জন্য আপনি একটা সঠিক অবস্থান খোঁজে বের করতে পারলেই হল। এরপর আর অবহেলা করার কোনো প্রয়োজন নেই। খুব দ্রুত এই ব্যবসাটি শুরু করুন।

আপনি চাইলে এটাকে ই-কমার্স বিজনেস হিসেবে একটি অনলাইন শপও চালাতে পারেন। বর্তমানে ক্রেতারা অনলাইন থেকে প্রচুর পণ্য কেনাকাটা করছে। এটির চাহিদা ভবিষ্যতেও তুমুল থাকবে। আপনি একটু চালাক টাইপের হলে অবশ্যই এমন সুযোগ মিস করবেন না।

শিশু এবং মায়েদের পণ্য ব্যবসা:

এটি মনে হবে সহজ ব্যবসা, তবে এটা এতোটা সহজ নয়। এই বিজনেস শুরু করার আগে আপনাকে পড়াশোনা করতে হবে। পণ্যগুলি খুব সংবেদনশীল। হাসপাতালের কাছাকাছি, একটি বৃহত আবাসিক অঞ্চল এই ব্যবসাটি শুরু করার জন্য সঠিক অবস্থান। এটি খুবই সুন্দর ক্ষুদ্র ও লাভজনক ব্যবসা আইডিয়া বাংলাদেশ ভিত্তিক।

বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনা করে আপনি আরও অনেকগুলো পণ্যের আইটেম এখানে যুক্ত করতে পারেন। তবে অবশ্যই পণ্যের মান শতভাগ ঠিক রেখে কাজ করার সামর্থ থাকতে হবে। মান সঠিকভাবে রেখে বন্টন করতে পারলে আপনি সফল একজন ব্যবসায়ী হিসেবে খুব দ্রুত পরিচিতি পাবেন।

একটি খেলনা দোকান খুলুন:

খেলনা শিল্প বাংলাদেশে নতুন। বেশিরভাগ খেলনা আসছে চীন থেকে। এগুলি আপনাকে পাইকারীতে কিনতে হবে। যে পণ্যগুলোর দাম যুক্তিসঙ্গত সেই সকল পণ্য আমদানি করতে পারেন। বাংলাদেশে খেলনার দোকান শুরু করার আগে আপনাকে বাজার বিশ্লেষণ করতে হবে।

একটি জিনিস আপনাকে মনে রাখতে হবে যে, খেলনাগুলি সমস্ত শ্রেণীর মানুষের জন্য নয়। তাই আপনাকে খেলনার দোকানের জন্য নিখুঁত ব্যবসায়ের পরিকল্পনা করতে হবে। আবার, এটির জন্য উপযুক্ত অবস্থান গুরুত্বপূর্ণ।

বাচ্চারা নিয়মিত খেলা করে এমন একটা জায়গায় এটি শুরু করা যাবে। স্কুল কলেজের মাটের আশেপাশে কোন একটা সঠিক জায়গা নির্বাচন করতে পারেন। কারণ সকল স্কুল কলেজে ছেলে মেয়েদের জন্য খেলা করার একটা আলাদা খেলার মাটের ব্যবস্থা রাখা হয়।

শিক্ষার্থীদের জন্য স্টেশনারি শপ ব্যবসা:

বাংলাদেশে আরও একটি ছোট লাভজনক ব্যবসায়িক ধারণা হচ্ছে স্টেশনারি শপ। এটি স্থানীয় ব্যবসায়ের ধারণা তবে খুব লাভজনক।

আপনার বিনিয়োগ কম থাকলে একটি স্টেশনারী শপই সেরা ব্যবসার আইডিয়া হতে পারে। স্কুল, কলেজ ছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয়ের কাছাকাছি এই বিজনেস শুরু করার সঠিক অবস্থান।

Advertisement

স্টেশনারি পণ্যের মধ্যে সকল আইটেম রয়েছে সবগুলো আইটেমের ১২ মাস চাহিদা থাকে। আবার এগুলোতে ভালো লাভবান হওয়ার সুযোগও রয়েছে। যদি আপনি কম টাকা বিনিয়োগ করে একটা লাভজনক ব্যবসা শুরু করতে পারেন। তাহলে অবহেলা না করে খুব দ্রুত এমন একটা জায়গা নির্বাচন করে এই বিজনেসটি শুরু করুন।

বাংলাদেশে ফাস্ট ফুড শপ ব্যবসা:

এটি এই তালিকার আমার সবচেয়ে প্রিয় ব্যবসায়ের ধারণা। বাংলাদেশের বেশিরভাগ তরুণ উদ্যোক্তারা এই লাভজনক ব্যবসায় আগ্রহী।

বিশেষত, ঢাকার মতো বড় শহরগুলিতে আপনি একটি ফাস্ট ফুড শপের ব্যবসা শুরু করতে পারেন। এমন জায়গার চট্টগ্রাম শহরের মধ্যেও অভাব নেই। এই বিজনেসে ভাল পরিষেবা এবং অবস্থান সাফল্যের মূল চাবিকাঠি। আমি মনে করি ন্যূনতম প্রায় ২ থেকে ৫ লক্ষ টাকা বিনিয়োগ করে এই বিজনেস শুরু করতে পারেন।

ফুড ব্যবসার ক্ষেত্রে একটা বিষয় সবসময় দেখতে হবে। সেটা হচ্ছে খাবারের সঠিক মান। অবশ্যই শতভাগ নিশ্চয়তা দিয়ে আপনাকে এই ব্যবসা করতে হবে। মানুষ বেশি টাকা খরচ করে খাবার ক্রয় করবে। যদি আপনি খাবারের সঠিক মান শতভাগ ঠিক রেখে কাজ করতে পারেন।

সুস্বাস্থ্য হলো সুখী থাকার মৌলিক অংশ। ক্রেতারা সবসময় ৫ টাকা ১০ টাকা আপনাকে বেশি দিতে রাজি থাকবে যদি আপনি তাদের জন্য স্বাস্থ্য সম্মত খাবার সার্ভ করতে পারেন।

কফি শপ বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা আইডিয়া –

একটি ছোট কফি শপ ব্যবসায়ের মালিক হওয়ার আইডিয়াটি খুবই ভাল। বাংলাদেশে কয়েকটি কফির দোকান রয়েছে। যারা কেবল কফি বিক্রি করছেন। আপনি যদি দীর্ঘ সময়ের জন্য নিজের ব্যবসা শুরু করতে চান, তবে আপনি এই ব্যবসাটি শুরু করতে পারেন।

কফির সাথে বর্তমানে জনপ্রিয় আরও কিছু পানি জানে খবারের চাহিদা তুমুল রয়েছে। যেমন আদার চা, তুলসি চা, হট কফি ইত্যাদি। এগুলোর জন্য খুবই কম টাকা বিনিয়োগ করতে হবে। কিন্তু লাভের অংশ থাকে তিন গুণ।

মোবাইল ফোন বিক্রয় করার দোকান:

এটি বাংলাদেশে নিজস্ব ক্ষুদ্র ও লাভজনক ব্যবসা আইডিয়া। এটি নিয়ে কাজ শুরু করার খুবই লাভজনক সুযোগ হবে। চাইলে অনলাইন শপের মাধ্যমেও এই বিজনেসের বিক্রয় বাড়াতে পারেন।

২০২০ সালের জরিপ অনুযায়ী ফলাফল দেখা যায় ইলেকট্রনিক পণ্যের মধ্যে মোবাইলের চাহিদা ও বিক্রি আগের তুলনায় প্রায় ১৩% বৃদ্ধি পেয়েছে। পুরো বিশ্বের মধ্যে এই ডিভাইসটি খুবই জনপ্রিয়। আপনি যেকোনো একটা নির্দিষ্ট এরিয়া বা অনলাইনের মাধ্যমে এটি শুরু করতে পারেন।

Advertisement

ছোট স্কেল রেস্তোঁরা ব্যবসা আইডিয়া:

Advertisement

রেস্তোঁরা ব্যবসা বাংলাদেশের অন্যতম ট্রেন্ডিং বিজনেস আইডিয়া। তবে, মূল ঘটনাটি হ’ল, রেস্তোঁরাগুলির ৮০% তাদের বিনিয়োগ হারাচ্ছে। অন্যদিকে ২০% এর কম রেস্তোঁরা বেশি পরিমাণে মুনাফা অর্জন করছে।

সুতরাং এই ব্যবসা সম্পর্কে চিন্তা করার আগে আপনাকে একটি নিখুঁত ব্যবসায়ের পরিকল্পনা করতে হবে। আপনাকে অবশ্যই আপনার শক্তি এবং দুর্বলতা খুঁজে বের করতে হবে। এই ক্ষুদ্র ও লাভজনক ব্যবসা আইডিয়া গুলোর মধ্যে এটি সর্বাধিক লাভজনক আইডিয়া, তবে এটি চ্যালেঞ্জিং।

মেয়েদের জন্য কসমেটিকসের দোকানঃ

প্রসাধনী শিল্পটি অন্য যে কোনও ব্যবসায়ের চেয়ে দ্রুত বাড়ছে। মূলত মেয়েরা এই ব্যবসায়ের প্রধান গ্রাহক। প্রায় সব মেয়েই যে কোনও প্রসাধনী আইটেম ব্যবহার করে অভ্যস্ত।

প্রায় 35% থেকে 40% বা আরও বেশি এই ব্যবসা থেকে উপার্জন করা যায়। আরও বেশি বিক্রয় করতে আপনি একটি অনলাইন কসমেটিকসের দোকান খুলতে পারেন।

পুরুষদের পণ্যগুলির জন্য একটি নির্দিষ্ট দামের দোকান:

স্থির দামের দোকান সর্বদা একটি লাভজনক ব্যবসা। আপনি যখন গ্রাহকদের লক্ষ্যবস্তু করেন। সবাই পুরুষ হন তবে আপনাকে সমস্ত পুরুষের পণ্য রাখতে হবে। ফোম সংরক্ষণ থেকে শুরু করে জুতা আপনার পণ্য হবে।

একটি আইসক্রিম দোকান:

একটি ভাল ব্যবসায়ের অবস্থান, আইসক্রিমের মান, ভাল সজ্জা এই ব্যবসায়ের তিনটি মূলনীতি। আসলে, একটি আইসক্রিম শপ লাভজনক ব্যবসায়ের ধারণা।

এই খাবারটি ছোট বড় সবাই খেতে পছন্দ করেন। মুষ্টি কয়েকজন ক্রেতা ছাড়া যাদের ডাক্তারের নিষেধ রয়েছে। তারা ছাড়া সবাই আইসক্রিম খেতে পছন্দ করেন। এটি গরমের সময় বেশি জনপ্রিয় থাকে।

বাংলাদেশে অ্যাকোয়ারিয়াম শপ ব্যবসা শুরু করুন:

সাধারণত, বাংলাদেশের গ্রাহকরা এখন যথেষ্ট পরিমাণে সমৃদ্ধ। আপনাকে মানসম্পন্ন পূর্ণ অ্যাকোয়ারিয়াম প্রদর্শন করতে হবে। এটি অন্যান্য ব্যবসার চেয়ে ধীর ব্যবসা কিন্তু এখনও খুব লাভজনক। আবার, অবস্থান এবং পরিষেবাগুলি সাফল্যের চাবিকাঠি।

ব্যবহৃত পণ্য ক্রয় এবং বিক্রয়:

এটি বাংলাদেশের পাশাপাশি বিশ্বের আরও একটি স্বল্প মূল্যের ব্যবসায়িক ধারণা। ব্যবসায়টি সহজ, আপনি ব্যবহৃত পণ্য কিনে কিছুটা মেরামত করে অন্য গ্রাহকের কাছে বিক্রি করবেন।

Advertisement

উদাহরণস্বরূপ, একটি মোবাইল ফোন, ল্যাপটপ, কম্পিউটার, টিভি এই ব্যবসায়ের পণ্য।

অনলাইন বিজ্ঞাপন কেনা বেচার বিকল্প। আপনি যদি কঠোর পরিশ্রমী হন, তবে সহজেই প্রচুর অর্থ উপার্জন করা যায়।

একটি জুস বার খুলুন:


আপনার নিজস্ব ব্যবসা শুরু করার জন্য জুস বারটি লাভজনক ব্যবসায়িক আইডিয়া। শুরুর সময়ে আপনার প্রায় ১ থেকে ৩ লাখ টাকা বিনিয়োগ করতে হবে।

বৈদ্যুতিন পণ্য বিক্রয় দোকান ব্যবসা:


এই ব্যবসাটি এখন বাংলাদেশে সবচেয়ে ট্রেন্ডিং এবং লাভজনক ব্যবসায়িক ধারণা। অন্যান্য দোকানের ব্যবসায়ের অবস্থানের মতো এখনানেও মূল বিষয় হচ্ছে অবস্থান। আপনি বড় সংস্থাগুলির ডিলারশিপের জন্য আবেদন করতে পারেন এবং এই লাভজনক ব্যবসা শুরু করতে পারেন।

ডিমের জন্য বাংলাদেশে পোল্ট্রি ফার্মিংয়ের ব্যবসা:


আপনি যদি কৃষিকাজের ব্যবসা শুরু করতে চান, তবে ডিম উৎপাদনের জন্য পোল্ট্রি ফার্ম কেন নয়? লেয়ার পোল্ট্রি ফার্মিং ব্যবসা পুরানো ব্যবসায়গুলির মধ্যে একটি তবে লাভজনকও।

প্রকৃতপক্ষে, বাংলাদেশের অন্যতম সফল ব্যবসায়িক শিল্প।
সাম্প্রতিক সময়ে, পোল্ট্রি ফিড ব্যয়ের কারণে কৃষকরা কম লাভ পাচ্ছেন। একটি সমাধান আছে, আপনাকে নিজের মুরগির জন্য একটি ফিড তৈরি করতে হবে। এই পদ্ধতিটি আপনার লাভ বাড়িয়ে দেবে।

ব্রয়লার হাঁস-মুরগির খামারের ক্ষুদ্র ও লাভজনক ব্যবসা আইডিয়া:


যখনই আমরা মুরগী ​​ভাজার জন্য খেতে যাই সেখানে ব্রয়লার মুরগি থাকে। এটি শহরগুলিতে এবং বাংলাদেশের পল্লী অঞ্চলে একটি লাভজনক বাবসা। আপনি যদি বেশি লাভ করতে চান, তবে আপনাকে খাদ্য মানের রেখে আপনার খামারের জন্য ফিড তৈরি করতে হবে।

বাংলাদেশে হাঁস চাষের ব্যবসা:


হাঁসের ডিমের চাহিদা মুরগির ডিমের চাহিদা থেকে বেশি। হাঁসের চাষের ব্যবসা শুরু করতে আপনার পুকুর বা কোনও মুক্ত জলের উৎস থাকতে হবে।

Advertisement

আপনার যদি একটি ছোট পুকুর থাকে, তবে আপনি আরামদায়কভাবে এই ক্ষুদ্র ও লাভজনক ব্যবসা আইডিয়া শুরু করতে পারেন। নতুন ব্যবসা বাংলাদেশে শুরু করার জন্য মাছ এবং হাঁসের সংমিশ্রণ একটি খুব লাভজনক ধারণা।

বাংলাদেশে ডেইরি ফার্মিং ব্যবসাঃ


কৃষিক্ষেত্রে, দুগ্ধ খামারটি এক নম্বর ব্যবসা হবে। এটি একটি দীর্ঘমেয়াদী ব্যবসা। আসলে, আপনি যদি নিশ্চিত লাভবান হতে চান, তাহলে দুধ বিক্রির ব্যবসা শুরু করতে খামার চালাতে পারেন।

দুগ্ধ খামার শুরু করার আগে আপনার একটি ব্যবসায়িক পরিকল্পনা করা উচিত। দুধ বিক্রি করে আপনি দুটি গরু থেকে ৫০০ টাকার বেশি উপার্জন করতে পারবেন। গবাদি পশু দুগ্ধ খামার ব্যবসায় বোনাস আয়।

ছাগল চাষের ব্যবসা:


নিশ্চয় এটি একটি খুব লাভজনক ছোট ব্যবসায়িক ধারণা বাংলাদেশ ভিত্তিক। এর জন্য কম পরিশ্রমের প্রয়োজন। তবে লাভের একটি ভাল রিটার্ন দরকার। বাংলাদেশে ছাগলের মাংসের চাহিদা সবসময়ই বেশি। আসলে এটি আপনার জন্য খুবই লাভবান ব্যবসা হবে।

বাংলাদেশে ফিশ ফার্মিংয়ের ব্যবসা:


এটি বাংলাদেশে আপনার নিজের ব্যবসা শুরু করার জন্য আরেকটি লাভজনক ব্যবসায়িক ধারণা। স্থানীয় ও জাতীয় বাজারে মাছের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। আপনি যদি লাভজনক ব্যবসা শুরু করতে চান, তবে মাছ চাষের ব্যবসা একটি ভাল পরিকল্পনা। এটি শুরু করার জন্য আপনার প্রচুর পরিমাণে অর্থ বিনিয়োগের দরকার নেই।

একই জায়গায় মাছ এবং হাঁস:


হাঁস ও মৎস্য চাষের ব্যবসা একত্রিত করা বাংলাদেশে একটি খুব ভাল ব্যবসা। এটি ফিশ ফিড ব্যয় হ্রাস করবে এবং আপনার ব্যবসা লাভজনক হবে। বাংলাদেশে এই বিজনেস করার জন্য প্রচুর লোক রয়েছে। মহিলা, তরুণ ব্যবসায়ী বা নতুনদের ন্যূনতম প্রচেষ্টা দিয়ে পরিচালনা করা যেতে পারে।

সবজি চাষের ব্যবসা:
আপনি যদি নিজের ছোট্ট ব্যবসা শুরু করতে চান বাংলাদেশে ছোট পুঁজি দিয়ে, তবে সবজি চাষের ব্যবসা সবচেয়ে ভালো হবে। প্রতিটি ছোট শুরু বড় শিল্পের পদক্ষেপ। আপনি যদি কোনো সুপার শপগুলিতে আপনার শাকসবজি সরবরাহ করতে পারেন তবে তা দুর্দান্ত হবে।

এ ছাড়া স্থানীয় বাজারেও সবজির প্রচুর চাহিদা রয়েছে। সুতরাং সেখানে বিক্রয় প্রক্রিয়া সম্পর্কে আপনার চিন্তা করার দরকার নেই।

বাংলাদেশে মৌমাছি চাষের ব্যবসা শুরু করুন:

Advertisement


মধু এমন জিনিস যা সর্বদা মূল্যবান খাদ্য সামগ্রী। বাণিজ্যিক মৌমাছি খামার শুরু করার আগে আপনাকে ভাল প্রশিক্ষণ নিতে হবে। এটি একটি ছোট ব্যবসা যেখানে বিনিয়োগ কম তবে রিটার্ন ভাল।

Advertisement

আসবাবপত্রের দোকান:


আজ আসবাবপত্র বাংলাদেশের সর্বাধিক ক্রমবর্ধমান শিল্প। শুরুতে, আপনাকে একটি ভাল পরিমাণ বিনিয়োগ করতে হবে এবং তারপরে আপনি ভাল আয় করতে পারবেন। আপনি আপনার তৈরি করা আসবাবপত্র অনলাইনে বিক্রয় করতে পারেন। অনলাইন বিজ্ঞাপন আপনার ভালো বিক্রির একটি ভাল উপায়।

মোবাইল ফুড কার্ট বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা –


ব্যক্তিগতভাবে, আমি এই ব্যবসা পছন্দ। এটি বাংলাদেশের আরও একটি ছোট আকারের ব্যবসায়ের সুযোগ। এই ব্যবসাটি শুরু করার আগে আপনার স্থানীয় কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে অনুমতি নেওয়ার চেষ্টা করুন।

সাইকেলের দোকান:
বর্তমান সময়ে সাইকেলের ব্যবসা সর্বাধিক লাভজনক। আপনি এটি কোনও সংস্থা থেকে কিনতে পারেন বা তাদের সাইকেল বিক্রি করতে পারেন। আপনি অন্য ব্যবসা করার থেকে এই ব্যবসাটি বেশি ভালো হতে পারে।

একটি বীমা এজেন্ট হন:


বীমা বিক্রয় ব্যবসা বা বীমা এজেন্ট এই তালিকার আমার সবচেয়ে প্রিয় ব্যবসা। কারণ আপনি এক বিক্রয় থেকে ১৫ বছর পর্যন্ত অর্থ উপার্জন করবেন।

উদাহরণস্বরূপ, আপনি আজ একটি বীমা বিক্রি করেছেন, তারপরে আপনি সেই বীমাটির পরিপক্কতা অবধি কমিশন পাবেন। এটি গাছ লাগানোর মতো। আমি মনে করি একটি বীমা এজেন্ট হয়ে ওঠা বাংলাদেশের সেরা প্যাসিভ আয়ের উপায়।

ব্যবসায় পরিকল্পনা রচনা:


ব্যবসায়ের পরিকল্পনা নিশ্চিত করা লেখালেখির ব্যবসা বাংলাদেশে অত্যন্ত অনন্য। আপনার যদি প্রতিটি ব্যবসায়িক ক্ষেত্রে বিস্তৃত জ্ঞান থাকে, তবে আপনি আপনার ব্যবসায়ের পরিকল্পনাটি বিক্রয় করতে পারেন। এটি বাংলাদেশে অর্থোপার্জনের সৃজনশীল উপায়। তবে কঠোর পরিশ্রমের প্রয়োজন।

কর্পোরেট অফিসে দুপুরের খাবার সরবরাহ করুন:
কর্পোরেট অফিসে হোমমেড লাঞ্চ সরবরাহ করা একটি দুর্দান্ত ছোট ব্যবসায়িক ধারণা বাংলাদেশ ভিত্তিক।

Advertisement

শুরু করার আগে আপনাকে মেনু তৈরি করতে হবে এবং নিশ্চিত করতে হবে যে, আপনি ভাল মানের খাবার সরবরাহ করতে পারেন। তরুণ ব্যবসায় লোক, শিক্ষার্থী, মহিলারা খুব আরামদায়কভাবে এই ব্যবসা শুরু করতে পারে।

অনলাইন শপ বা ই-কমার্স ব্যবসা:


ই-বাণিজ্য বাণিজ্য একটি লাভজনক ব্যবসায়িক ধারণাগুলির মধ্যে একটি। তবে এর জন্য প্রচুর পরিশ্রম প্রয়োজন। এই ব্যবসায়ের মূল সুবিধা হ’ল আপনি বাড়ি থেকেও এই ব্যবসা চালাতে পারেন। বাংলাদেশে ৯০০০ এরও বেশি ই-কমার্স ওয়েবসাইট রয়েছে এবং ১৫০০০ এরও বেশি এফ-বাণিজ্য পৃষ্ঠাগুলি ব্যবসা করছে।

ইউটিউব চ্যানেল দিয়ে বাংলাদেশ থেকে অর্থ উপার্জন করুন:


আপনি যদি ভিডিও তৈরিতে দক্ষ হয়ে থাকেন। তবে আপনি নিজের ইউটিউব চ্যানেল খুলতে পারেন। অবশ্যই এটি অর্থোপার্জনকারী জন্য খুবই লাভবান এবং মজার। তবে অন্যের ভিডিও কখনও ব্যবহার করবেন না। আপনার নিজের ভিডিও তৈরি করতে হবে।

সামাজিক মাধ্যম ব্যবস্থাপক:
নিশ্চয়ই এটি অনলাইন বিপ্লবের জন্য সোনালী সময়। অনেক সংস্থা একটি সামাজিক মিডিয়া পরিচালকের সন্ধান করছে। আপনি বিনিয়োগ ছাড়াই এই ব্যবসা শুরু করতে পারেন। তবে গ্রাহক পেতে আপনার একটি অনলাইন বিজ্ঞাপনের প্রয়োজন।

গুগল অ্যাডসেন্সের মাধ্যমে আপনার ওয়েবসাইট নগদীকরণ করুন:


আপনার যদি এমন কোনও ওয়েবসাইট থাকে, যেখানে আপনি প্রচুর ভিজিটর পাচ্ছেন। তবে আপনি গুগল অ্যাডসেন্সের মাধ্যমে আপনার সাইটকে মুদ্রাঙ্কিত করতে পারেন।

গুগল অ্যাডসেন্স একটি উপার্জন করার জন্য উপযুক্ত মাধ্যম। যেখানে আপনি নিজের ওয়েবসাইট নগদীকরণের মাধ্যমে নিরাপদ, সীমাহীন এবং সুরক্ষিত অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।

অনলাইন সংবাদপত্রের ব্যবসা:


এটি স্বল্প সময়ের ব্যবসায়ের ধারণা। আপনি খুব অল্প পরিমাণে অর্থ দিয়ে শুরু করতে পারেন। ব্যবসায়ের পরিকল্পনাটি সহজ। তবে এই ক্ষেত্রে ভালো কোম্পানির ডোমেন, হোস্টিং, থিম ব্যবহার করবেন।

টি-শার্ট বিজনেস ক্ষুদ্র ও লাভজনক ব্যবসা আইডিয়া :
এটি এমন একটি পোশাক যা সমস্ত শ্রেণীর লোকেরা পছন্দ করে। টি-শার্ট বিজনেস বাংলাদেশের একটি স্বল্প মূল্যের ব্যবসায়িক ধারণা। মাত্র ৪ থেকে ৫ হাজার টাকা দিয়ে এই বিজনেস শুরু করতে পারেন।

ছোট স্কেল ক্রীড়া পণ্য উৎপাদন ব্যবসা:
বাংলাদেশ একটি স্পোর্টস পাগল জাতি। আপনি ছোট আকারের ক্রীড়া পণ্য উৎপাদন ব্যবসা শুরু করতে পারেন। স্পোর্টস জার্সি, ক্যাপ, স্পোর্টস প্যান্ট ইত্যাদির মতো।

Advertisement

চামড়া বেল্ট উৎপাদন ব্যবসায়:


সমস্ত উৎপাদন ব্যবসায়িক ধারণার মধ্যে এটি বাংলাদেশের সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা। প্রকৃতপক্ষে, উৎপাদনে অন্যান্য ব্যবসায়ের তুলনায় বিনিয়োগ কম হয়।

বাংলাদেশের ক্ষুদ্র স্কেল গার্মেন্টস ব্যবসা:
স্থানীয় বাজারের চাহিদা পূরণের জন্য কাজ করার চেষ্টা করুন। একটি ছোট স্কেল গার্মেন্টস একটি সুস্পষ্ট লাভজনক ব্যবসা। কিন্তু একটি ব্যবসায়িক পরিকল্পনা শুরু করার আগে এই ব্যবসায়ের জন্য আপনার শক্তি এবং দুর্বলতা জানার চেষ্টা করুন।

ফটোগ্রাফি বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা শুরু করুন:

Advertisement


ফটোগ্রাফি একটি শিল্প। এটি কেবল শখ নয়। আপনি একজন পেশাদার ফটোগ্রাফার হিসাবে প্রচুর অর্থ উপার্জন করতে পারেন। বাংলাদেশে, একটি বিবাহের ফটোগ্রাফারের খুব চাহিদা রয়েছে।
প্রকৃতপক্ষে, এটি বাংলাদেশের একটি লাভজনক ছোট ব্যবসায়ের ধারণা ।

গাড়ি ধোওয়া ব্যবসা:
বিদেশে এটি একটি লাভজনক ব্যবসা এবং বাংলাদেশও। এটি বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের জন্য উপযুক্ত ব্যবসায়ের ধারণা।

সুরক্ষা পরিষেবা সংস্থা:
অনেক বাড়ির মালিক এবং ছোট সংস্থাগুলি সুরক্ষা পরিষেবা খুঁজছেন। বাংলাদেশে এই ধরণের ব্যবসা সরবরাহকারী সংস্থাগুলি খুব কমই রয়েছে। আপনি এই ব্যবসাটি খুব আরামদায়ক উপায়ে শুরু করতে পারেন।

কৃত্রিম গাছ এবং ফুল তৈরির ব্যবসা:
যদিও, এটি মেশিন নির্ভর ব্যবসায় কিন্তু খুব পেশাদার ব্যবসায়িক ধারণা। কৃত্রিম গাছের চাহিদা দিন দিন বাড়ছে। এগুলি ঘরে বসে ডিজাইনিং করা হয়। স্টার্টআপ ব্যয় বেশি তবে আপনি যখনই শুরু করেন কেউ আপনাকে থামাতে পারবে না।

আইপিওতে বিনিয়োগ করুন:


আইপিও (প্রাথমিক পাবলিক অফারিং) ব্যবসায় বিনিয়োগ করা সম্পূর্ণ ঝুঁকিমুক্ত আয়ের উৎস। আপনি আইপিওর জন্য আবেদন করতে পারেন এবং আপনি যদি ভাগ্যবান হন, তবে আইপিও শেয়ার জিতে ভাল লাভ পাবেন।

বাংলাদেশে সেকেন্ডারি শেয়ার মার্কেটে বিনিয়োগ করুন:
সাধারণভাবে বাংলাদেশের শেয়ার মার্কেট দুই প্রকারের। একটি ঝুঁকিমুক্ত তবে সীমিত উপার্জনকে আইপিও বলা হয়।

পরেরটি হ’ল মাধ্যমিক বাজার যেখানে ঝুঁকি রয়েছে। তবে আপনি যদি বিশেষজ্ঞ হন, তবে আপনি প্রচুর অর্থ উপার্জন করতে পারেন।

Advertisement
Advertisement

Md thouhidul islam tawhid - seo and digital marketing

একজন ইলেক্ট্রিক্যাল বিষয়ে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে সবসময় টেকনোলজি কে অগ্রাধিকার দিতে ভালোবাসি। প্রযুক্তির সাথে এগিয়ে যেতে ও নিজেকে সবসময় আপডেট রাখার জন্য নিয়মিত প্রযুক্তিগত জ্ঞান নিজে অর্জনের পাশাপাশি অন্যদের সাথে শেয়ার করাতে ভালো লাগে। সময় পেলে প্রযুক্তি, ব্যবসা, মার্কেটিং বিষয়ে লিখতে চেষ্টা করি। পেশা যাই হোক, তা হতে লাভবান হতে চাইলে ব্যবসা ও মার্কেটিং জ্ঞান আবশ্যক।

নিচের বাক্সে আপনার মতামত লিখে জানান।