কিভাবে অনলাইনে ইনকাম করা যায় উপায় জেনে নিন

কিভাবে অনলাইনে ইনকাম করা যায় এবিষয়ে জানার জন্য অনেকেই আগ্রহী। সবাই অনলাইন থেকে অর্থ উপার্জন করতে চাই। তবে সবার জন্য আয় করা সম্ভব হয়না। কারণ অনলাইন থেকে ইনকাম করার জন্য বিশেষ কিছু বিষয়ে সাধারণ দক্ষতার পাশাপাশি সঠিক উপায়ে কাজ করতে হবে। এই দু’টি সমস্যার জন্য সবাই অনলাইনে সফল হতে পারে না। কিছু মানুষ আছে যারা দক্ষতা অর্জন করতে চাইনা এবং সঠিকভাবে কাজও করে না। কিন্তু হাজার হাজার ডলার আয় করতে চাই। আপনিও যদি এমন হয়ে থাকেন, দয়া করে লেখাটি পড়ে সময় নষ্ট করবেন না।

আপনার যদি কমপক্ষে ১ থেকে ৩ মাস ইনকাম শুরু করার জন্য সময় থাকে, তাহলে আমাদের আজকের লেখাটি মনোযোগ দিয়ে পড়ুন। মনে রাখবেন, ইনকাম শুরু হওয়ার সাথে সাথে কিন্তু হাজার হাজার ডলার আয় হবেনা। ধীরে ধীরে আপনাকে হাজারের কাছে যেতে হবে। অনলাইন থেকে আয় করা খুবই সহজ। যদি আপনি সময় দিতে পারেন এবং ধর্য্য নিয়ে এগোতে পারেন। দক্ষতা প্রাথমিকভাবে কারো থাকেনা। দক্ষতা কাজ করতে করার মাধ্যমে অর্জিত হবে। এটা নিয়ে আপনার টেনশন করার কোনো প্রয়োজন নেই। কাজ করার আগ্রহ আগে থেকে নিজের মধ্যে থাকতে হবে। যদি কাজের আগ্রহ না থাকে, তাহলে আপনি এখানে কাজ করে সময় নষ্ট করবেন না।

কিভাবে অনলাইনে ইনকাম করা যায় –

আয় করার বিষয়ে আজকে অবশ্যই জানাব। তবে আপনাদের আরও কিছু কথা বলতে চাই। বিশ্বাস করুন আপনি চেষ্টা করলে অবশ্যই ইন্টারনেট থেকে মানে ২০ থেকে ৩০ হাজার টাকা আয় করা একদম সহজ। আমি কখনও আপনাদের লাখ লাখ টাকা বা হাজার ডলারের স্বপ্ন দেখাবো না। এমন না যে, আপনি হাজার ডলার আয় করতে পারবেন না। চেষ্টা করলে অবশ্যই সম্ভব।

বিডিব্লগের কন্টেন্টগুলো অন্যদের থেকে ভিন্ন। আমরা সবসময় বাস্তবতা নিয়ে কথা বলি। একসময় আমিও অনেক রকমের কাজ করে ইন্টারনেট থেকে বেশি টাকা ইনকাম করতে পারিনি। আলহামদুলিল্লাহ! বর্তমানে অনেক ভালো ইনকাম করছি। আপনি একসময় বিডিব্লগ নামের কোনো ওয়েবসাইট খোঁজে পাননি। দেখুন আজকে এই লেখাটি বিডি ব্লগ ওয়েব সাইটে পড়ছেন। আপনাদের পড়ার সুযোগ করে দেওয়ার মাধ্যমে আমি এখান থেকে আয় করছি। এখনও কি আপনাদের মনে প্রশ্ন আসে অনলাইন থেকে আয় করার? আমি নিজেই যে অনলাইন থেকে ইনকাম করছি তার ছোট্ট একটা প্রমাণ হচ্ছে বিডি ব্লগ।

সহজে কিভাবে অনলাইনে ইনকাম করা যায় –

এমন প্রশ্নটি আমি সবসময় পায়। আমাকে অধিকাংশ সময় ফেসবুকে প্রশ্নটি করা হয়। আমি আসলে এই প্রশ্নের উত্তর দিতে কষ্ট পাই। কারণ বর্তমানে সরকার নিজেই ঘোষণা দিয়েছে অনলাইন থেকে আয় করার জন্য। এমনকি বাংলাদেশ সরকার অনেকগুলো প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করেছেন। যেন ছেলে মেয়ে ও বেকার সবাই অনলাইনের মাধ্যমে স্বাবলম্বী হতে পারে।

ইন্টারনেটের মাধ্যমে আয় করার অনেকগুলো উপায় রয়েছে। আপনাকে নিজের পছন্দের একটা বিষয়ে কাজ করতে হবে। ভালো লাগার বিষয়ে আমি আগেই আলোচনা করেছি। যেন আপনারা টাকার জন্য অপছন্দের কোনো কাজ না করেন। পছন্দের কাজটা করে আপনি যেমন তৃপ্তি পাবেন। তেমনি এখান থেকে ইনকাম করাটাও আপনার জন্য সহজ হবে। আমরা আমাদের সাইটে ইনকাম গাইড নিয়ে একাধিক আইডিয়া শেয়ার করেছি। আরও বিস্তারিত জানতে লার্নিং ও আর্নিং পেইজে ভিজিট করুন।

ব্লগ কন্টেন্ট রাইটার হিসেবে আয় করুন:

জনপ্রিয় একটা ক্রিয়েটিভ আইডিয়া হচ্ছে কন্টেন্ট রাইটিং। বিভিন্ন ওয়েবসাইটের জন্য কন্টেন্ট লিখে দিয়ে আয় করতে পারেন। এই পেশায় যারা কাজ করেন, তাদের চাহিদা আকাশ কুসুম। আমি নিজেও অনেকগুলো কাজের অফার পাই। অনেকেই আমার সাথে রাগ করেন। ভাবেন আমি ইচ্ছে করে রাইটার হিসেবে সার্ভিস সেল দিচ্ছি না। সত্যি বলতে আমি আমার নিজের কন্টেন্ট লিখে সময় পাইনা। অনেক বেশি টাকার বিনিময়ে লেখকদের হায়ার করা হয়। রাইটিং জব করে ইনকাম করার জন্য আন্তর্জাতিক ভাষায় লিখতে জানা গুরুত্বপূর্ণ। বিশেষ করে ইংরেজিতে এসইও ফ্রেন্ডলি কন্টেন্ট লিখতে পারলে চওড়া দামে কন্টেন্ট বিক্রি করতে পারবেন।

কিভাবে অনলাইনে ইনকাম করা যায় উপায় জেনে নিন
কিভাবে অনলাইনে ইনকাম করা যায় উপায়

ইংরেজিতে এক হাজার শব্দ লেখার জন্য সাধারণত $১০ থেকে $২০ ডলার পেমেন্ট করা হয়। আপনার দক্ষতা অনুযায়ী আরও বেশি বা কম পেমেন্ট করা হতে পারে। বাংলা ভাষায় লিখে বেশি টাকা ইনকাম করা যায় না। বাংলা ভাষায় এক হাজার শব্দ লেখার জন্য সাধারণত ২০০ টাকা থেকে ৫০০ টাকা পর্যন্ত পেমেন্ট করা হয়। বাংলা ও ইংরেজিতে কন্টেন্ট রাইটার হিসেবে কাজ করে ইনকাম করার জন্য নিচের লেখাটি পড়ুন।

অনলাইনে ইনকাম বাংলাদেশী সাইট : আয় করুন ঘরে বসে

কিভাবে অনলাইনে ইনকাম করা যায় এবিষয়ে আর প্রশ্ন না করে দ্রুত শুরু করতে পারেন কন্টেন্ট রাইটিং জব। অনেকে নিজের কন্টেন্ট অন্যদের কম দামে বিক্রি করতে পছন্দ করে না। আমি নিজেও বাংলা ভাষায় লেখা বিক্রি করি না। আমার মতো যারা লেখা অল্প টাকায় বিক্রি করতে পছন্দ করেন না। আপনারা চাইলে নিজের জন্য একটা ব্লগ ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারেন। বিডি ব্লগের মতো একটা ওয়েবসাইট করে আপনিও আমার মতো বিভিন্ন পদ্ধতিতে আয় করতে পারবেন। নিজের সাইটে লেখা প্রকাশ করার মাধ্যমে ৩৬০° তে অনলাইন থেকে আয় করতে পারবেন। ব্লগি করে আয় করার উপায় জানতে নিচের লেখাটি পড়ুন।

মোবাইল দিয়ে ব্লগিং করে ইনকাম করার উপায় | Make money blogging

ওয়েবসাইট তৈরি করতে কি কি লাগে ও ওয়েবসাইটের প্রয়োজনীয়তা

গ্রাফিক ডিজাইন থেকে কিভাবে অনলাইনে ইনকাম করা যায়

ছোট বড় মাঝারি সব ধরনের প্রতিষ্ঠান গ্রাফিক ডিজাইনারদের হায়ার করে থাকেন। এদের চাহিদা সকল সেক্টরের রয়েছে। অনেক কোম্পানি গ্রাফিক ডিজাইনারদের খোঁজ করে করে হতাশ হয়ে যাচ্ছে। কারণ সঠিকভাবে সেবা দিতে পারে এমন গ্রাফিক ডিজাইনারদের অভাব রয়েছে। বাংলাদেশের মধ্যে নয়। বর্তমানে সারাবিশ্বে গ্রাফিক ডিজাইন জবের অভাব নেই। একজন গ্রাফিক ডিজাইনার হিসেবে ক্যারিয়ার গড়ার জন্য আপনাকে একজন ক্রিয়েটিভ ব্যক্তি হতে হবে।

এমন নয় যে, ক্রিয়েটিভ হওয়ার জন্য আপনাকে রকেট সায়েন্স পড়াশোনা করতে হবে। শুধুমাত্র আগ্রহ, পরিশ্রম ও ধর্য্যের মাধ্যমে নিজেকে একজন ক্রিয়েটিভ গ্রাফিক ডিজাইনার হিসেবে গড়তে পারবেন। কিভাবে অনলাইনে ইনকাম করা যায় এবিষয়ে আর শুধু শুধু প্রশ্ন না করে। আজ থেকে নিজের ক্যারিয়ার হিসেবে গ্রাফিক ডিজাইনের কাজ শুরু করতে পারেন। গ্রাফিক ডিজাইন সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানার জন্য নিচের লেখাটি পড়ুন।

গ্রাফিক ডিজাইন কি? গ্রাফিক ডিজাইন কোর্স ও ক্যারিয়ার আলোচনা

কত টাকা আয় করা যায় গ্রাফিক ডিজাইনিং করে?

বাংলাদেশের মধ্যে কোম্পানির হয়ে যদি চাকরি করেন। এক্ষেত্রে প্রতি মাসে একজন সাধারণ ডিজাইনার করে ২০ থেকে ৩০ হাজার টাকা সেলারি প্রদান করা হয়। একজন সিনিয়র ডিজাইনার হিসেবে কাজ করলে ৩০ থেকে ১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকার বেশি সেলারি প্রদান করা উচিত। যদি একজন ফ্রিল্যান্সার হিসেবে অনলাইনে কাজ করেন। এক্ষেত্রে ঘন্টা, দিন, মাস হিসেবে পেমেন্ট করা হয়। অনেকগুলো কোম্পানি প্রতিটি ডিজাইনের জন্য পেমেন্ট করে। যদি ভালো কাজ করতে পারেন, তাহলে মানে ৫০ থেকে ২ লক্ষ টাকার বেশি আয় করা সম্ভব।

ইউটিউব থেকে কিভাবে অনলাইনে ইনকাম করা যায়

সহজে ইউটিউব থেকে কিভাবে অনলাইনে ইনকাম করা যায়? তা জানার জন্য আমাদের প্রকাশ করা আগের ইউটিউব সম্পর্কিত সকল ব্লগ পোস্টগুলো পড়ার চেষ্টা করবেন। এটি একটি ক্রিয়েটিভিটির প্লাটফর্ম। আপনি যদি অডিয়েন্সদের মজা দিতে পারেন ও তথ্য সরবরাহ করতে পারেন। অবশ্যই এখান থেকে সফল হওয়া সম্ভব। সফলতার জন্য অডিয়েন্সদের গুরুত্বপূর্ণ দেওয়া মৌলিক বিষয়। ধরে নিতে পারেন ইউটিউব থেকে আয় করার জন্য এটাই সিক্রেট কৌশল।

আমিও অনেক দিন থেকে ইউটিউবে কাজ করে আসছি। তবে আমি ইউটিউবে প্রয়োজন মতো সময় দিতে পারি না। এজন্য আমি এখনও ইউটিউবে ভালো সফল হতে পারিনি। আমার অডিয়েন্সরা আমার ভিডিও দেখার জন্য পুনরায় অনেক কম আসে৷ কারণ আমি একটি ক্যাটারির উপর ভিডিও তৈরি করি না। সবচেয়ে বড় সমস্যা হচ্ছে ভিউয়ারদের সাথে কানেক্টেড থাকার জন্য আমার ইউটিউব একটিভিটি একদম কম। এটা আমাকে সবসময় সফলতা থেকে পিছিয়ে রেখেছে।

আমার অভিজ্ঞতা থেকে আপনারা কিভাবে সফল হতে পারেন? এবিষয়ে আমি যথাসম্ভব আমার জ্ঞান শেয়ার করেছি। আমি যেকোনো বাঁধার কারণে সফল হতে পারছি না। উক্ত সকল বাঁধা সম্পর্কে তথ্য সহকারে আলোচনা করেছি। আমার লেখা ইউটিউব সম্পর্কে অন্যান্য সকল ব্লগ পড়ার জন্য নিচের লেখাগুলো পড়ুন।

ব্যবসায়ের জন্য ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়ম

ইউটিউবার হতে চাইলে জানতে হবে ইউটিউব বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে

কেন এই মুহূর্তে একটি ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করা প্রয়োজন

ইউটিউব ভিডিও ডাউনলোড সফটওয়্যার | ইউটিউব ডাউনলোড | ইউটিউব অ্যাপস ডাউনলোড

অনলাইনে ইনকাম করার আইডিয়া –

ইনকাম করার আরও জনপ্রিয় অনেকগুলো উপায় ও আইডিয়ার রয়েছে। আপনাদের জন্য আরও কিছু জনপ্রিয় উপায় পরবর্তী শেয়ার করবো। এবিষয়ে আপনারা যদি আগ্রহী হয়ে থাকেন। আপনাদের আগ্রহের কথা আমাদের কমেন্ট করে জানান। আপনাদের কমেন্ট আমাদের আরও উৎসাহীত করে ভালো ভালো আইডিয়া শেয়ার করার জন্য।

বিডি ব্লগ সবসময় বিশ্বস্ত সকল তথ্য শেয়ার করে। আমাদের পাঠকরা আমাদের সম্পদ। আপনারা যদি আমাদের লেখা ভালোবাসেন তাহলে আমরা সফল। যদি আপনাদের সাপোর্ট না পাই, তাহলে আমরা ব্যর্থ। লেখাগুলোর লিঙ্কটি কপি করে চাইলে আপনার ফেসবুক বন্ধুদের সাথে শেয়ার করতে পারেন।

bd blog writer

একজন ইলেক্ট্রিক্যাল বিষয়ে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে সবসময় টেকনোলজি কে অগ্রাধিকার দিতে ভালোবাসি। প্রযুক্তির সাথে এগিয়ে যেতে ও নিজেকে সবসময় আপডেট রাখার জন্য নিয়মিত প্রযুক্তিগত জ্ঞান নিজে অর্জনের পাশাপাশি অন্যদের সাথে শেয়ার করাতে ভালো লাগে। সময় পেলে প্রযুক্তি, ব্যবসা, মার্কেটিং বিষয়ে লিখতে চেষ্টা করি। পেশা যাই হোক, তা হতে লাভবান হতে চাইলে ব্যবসা ও মার্কেটিং জ্ঞান আবশ্যক।

কমেনট বাক্সে আপনার মতামত লিখে জানান