গ্রাফিক ডিজাইন কি? গ্রাফিক ডিজাইন কোর্স ও ক্যারিয়ার আলোচনা

গ্রাফিক ডিজাইন হচ্ছে একটা ক্রিয়েটিভ প্রফেশন৷ যেকোনো কিছুতে একটা নতুনত্ব ও ভিন্ন ডিজাইন যুক্ত করার জন্য গ্রাফিক ডিজাইনের ভূমিকা অপরিসীম। পৃথিবীর প্রতিটি কাজের জন্য ডিজাইনারের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। বিশ্বের প্রতিটি কোম্পানিতে ডিজাইনারদের অবস্থান রয়েছে। তাদের ছাড়া কোনো কোম্পানি সেবাকে অন্য মাত্রায় নেওয়ার স্বপ্ন দেখতে পারে না। টোটালি এটা বলা যায়। আপনি যেটাতে উন্নয়নের ছোঁয়া লাগাতে চান, সেটাতে গ্রাফিক ডিজাইনের প্রয়োজন হবে।

আপনিও যদি একজন গ্রাফিক ডিজাইনার হিসেবে ক্যারিয়ার গড়তে চান, তাহলে আমাদের আজকের লেখাটি মনোযোগ দিয়ে পড়ুন। এখানে আমরা একজন গ্রাফিক ডিজাইনার হয়ে উঠার সকল তথ্য ও কৌশল শেয়ার করবো।

গ্রাফিক ডিজাইন কি?

গ্রাফিক ডিজাইন হ’ল একটি ক্রিয়েটিভ শিল্প, পেশা এবং শিক্ষনীয় শৃঙ্খলা। যার ক্রিয়াকলাপ সুনির্দিষ্ট উদ্দেশ্য সহ সামাজিক গ্রুপগুলোতে নির্দিষ্ট বার্তা প্রেরণ করার উদ্দেশ্যে ভিজ্যুয়াল যোগাযোগের প্রজেক্টে অন্তর্ভুক্ত।

যেকোনো শিল্প খাতকে আরও সমৃদ্ধ ও উপযুক্ত করতে সঠিক ডিজাইনের প্রয়োজন। বাংলাদেশ বর্তমানে এই খাতকে উন্নত করার জন্য বিভিন্ন পদক্ষেপ নেওয়া শুরু করেছে। এটি শুধুমাত্র একজন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান কে এগিয়ে নিতে সাহায্য করেনা। পরোক্ষভাবে এটি বাংলাদেশ কে এগিয়ে নিতে সাহায্য করছে।

Advertisement

অনেকেই এটাকে শুধুমাত্র ফ্রিল্যান্সিং পেশা বলে মনে করেন। এটা মোটেও শুধুমাত্র ফ্রিল্যান্সিংয়ের মধ্যে সীমাবদ্ধ নয়। যার এই কাজের দক্ষতা রয়েছে তিনি কখনও বেকার থাকতে পারেন না। কারণ এখনও বাংলাদেশ ও বিশ্বের মধ্যে চাহিদার তুলনায় ডিজাইনারদের সংখ্যা অনেক কম।

গ্রাফিক ডিজাইনের প্রকার:

বর্তমানে বিভিন্ন প্রকারের গ্রাফিক ডিজাইন রয়েছে। ডিজাইনগুলো ব্যবহারের ধরণ অনুযায়ী একেক নামে পরিচিত। আমরা এখানে জনপ্রিয় ৮ প্রকারের গ্রাফিক ডিজাইন নিয়ে আলোচনা করবো। তবে এমন নয় যে, গ্রাফিক ডিজাইন ৮ প্রকারে সীমাবদ্ধ। এটার একাধিক প্রকার থাকতে পারে।

ভিজ্যুয়াল আইডেন্টিটি গ্রাফিক ডিজাইন:

বিজনেস, প্রতিষ্ঠান ও ক্রেতাদের মধ্যে সম্পর্ক তৈরি করার জন্য ভিজ্যুয়াল আইডেন্টিটি গ্রাফিক ডিজাইন কাজ করে। ব্র্যান্ড আইডেন্টিটি হ’ল কোম্পানি কিভাবে তার ব্যক্তিত্ব, স্বন এবং সংমিশ্রণের পাশাপাশি স্মৃতি, আবেগ এবং অভিজ্ঞতার সাথে যোগাযোগ করে তার পরিচয়। ভিজ্যুয়াল আইডেন্টিফিকেশন গ্রাফিক ডিজাইনটি হ’ল: ব্র্যান্ড পরিচয়ের ভিজ্যুয়াল উপাদানগুলো। যা ব্র্যান্ডের চেহারা হিসাবে কাজ করে। এই অদম্য গুণাবলী চিত্র আকার এবং রঙের মাধ্যমে যোগাযোগ কে ভিজ্যুয়াল আইডেন্টিটি গ্রাফিক ডিজাইন বলা হয়।

ভিজ্যুয়াল আইডেন্টিটি গ্রাফিক ডিজাইন
ভিজ্যুয়াল আইডেন্টিটি

ডিজাইনাররা ব্যক্তি, পণ্য বা কোম্পানির ভিজ্যুয়াল আইডেন্টিটি গ্রাফিক ডিজাইন তৈরি করে দেন। যা ব্র্যান্ডের সাথে যুক্ত লোগো, টাইপোগ্রাফি, রঙ প্যালেট এবং চিত্রের মতো সম্পদ তৈরি করতে সহায়তা করে এবং যা কোনো ব্র্যান্ডের ব্যক্তিত্বকে উপস্থাপন করে।  স্ট্যান্ডার্ড বিজনেস কার্ড এবং কর্পোরেট স্টেশনারি ছাড়াও ডিজাইনাররা প্রায়শই কোম্পানি বা পণ্যের চাহিদা অনুযায়ী বিভিন্ন ডিজাইন তৈরি করেন। যা কোম্পানির সেরা অনুশীলনগুলো বর্ণনা করে এবং বিভিন্ন মিডিয়া জুড়ে প্রচারে ভিজ্যুয়াল ব্র্যান্ডিংয়ের উদাহরণ সরবরাহ করে। এই সকল ডিজাইন ভবিষ্যতে সারা বিশ্ব জুড়ে ব্র্যান্ডের ধারাবাহিকতা নিশ্চিত করতে সহায়তা করে।

Advertisement

ভিজ্যুয়াল আইডেন্টিটি গ্রাফিক ডিজাইন হচ্ছে খুবই সাধারণ টাইপের ডিজাইন। নতুনরা প্রাথমিকভাবে এখান থেকে শেখা শুরু করতে পারেন। এটি শিখতে বেশি জটিলতা তৈরি হবে না। ভিজ্যুয়াল আইডেন্টিটি গ্রাফিক ডিজাইন শেখার পরে অন্যান্য ডিজাইনের কাজটা সহজ মনে হবে। তাই যারা নতুন এই পেশায় কাজ করতে চান, তাদের ভিজ্যুয়াল আইডেন্টিটি গ্রাফিক ডিজাইন দিয়ে শুরু করা ভালো হবে।

মার্কেটিং এবং বিজ্ঞাপন গ্রাফিক ডিজাইন:

অনেক সময় কোনো কোম্পানি যখন তাদের পণ্যের প্রচারণা চালাতে চান। তখন প্রচারের জন্য বিজ্ঞাপন তৈরি করার প্রয়োজন হয়। কোম্পানি তাদের টার্গেটেড ক্রেতাদের কাছে পৌঁছানোর পরে একশন সংগ্রহ করতে বিজ্ঞাপন ডিজাইনারের উপর নির্ভর করে। ক্রেতাদের মনোযোগ হ্যাক করার জন্য ডিজাইনার তার কৌশলগুলো বিজ্ঞাপন ডিজাইনে প্রয়োগ করেন।

কোম্পানিগুলো তাদের টার্গেটেড ক্রেতাদের সিদ্ধান্ত গ্রহণের প্রক্রিয়াটি ঠিক করতে সফল মার্কেটিং প্রচেষ্টার উপর নির্ভর করে। মার্কেটিং একটি পণ্য, পরিষেবা বা ব্র্যান্ড সম্পর্কে ক্রেতাদের যে চাহিদা, প্রয়োজন, সচেতনতা এবং তৃপ্তির উপর ভিত্তি করে লোককে একত্রিত করে। যেহেতু মানুষ সবসময় ভিজ্যুয়াল কনটেন্ট দেখে আকর্ষক মনে করে। এজন্য গ্রাফিক ডিজাইন পণ্য ও সেবা সমূহকে আরও সুন্দর ও আকর্ষকভাবে প্রচারের জন্য সহায়তা করে।

মার্কেটিং এবং বিজ্ঞাপন গ্রাফিক ডিজাইন
মার্কেটিং এবং বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন ডিজাইনাররা মার্কেটিংয়ের কৌশলগুলোর জন্য শক্তিশালী কন্টেন্ট তৈরি করতে কোম্পানির মালিক, পরিচালক, মার্কেটার পেশাদারদের সাথে কাজ করে। তারা একা বা অভ্যন্তরীণ বা সৃজনশীল দলের অংশ হিসাবে কাজ করতে পারে। ডিজাইনারগণ নির্দিষ্ট ধরণের মিডিয়াতে (বিশেষত যানবাহনের মোড়ক বা ম্যাগাজিনের বিজ্ঞাপনগুলো) ডিজাইনিংয়ের কাজ করেন। এছাড়াও অনলাইন ভিত্তিক একাধিক প্রজেক্ট নিয়ে কাজ করার সুবিধা রয়েছে।

Advertisement

মার্কেটিং গ্রাফিক ডিজাইনের উদাহরণ:

  • পোস্টকার্ড এবং ফ্লাইয়ার
  • ম্যাগাজিন এবং সংবাদপত্রের বিজ্ঞাপন
  • পোস্টার, ব্যানার এবং বিলবোর্ড
  • ইনফোগ্রাফিক্স
  • গাড়ির মোড়ক
  • স্বাক্ষর এবং ট্রেড শো প্রদর্শন
  • ইমেল মার্কেটিং টেম্পলেট
  • পাওয়ারপয়েন্ট প্রেজেন্টেশন
  • মেনু
  • সামাজিক মিডিয়া বিজ্ঞাপন, ব্যানার এবং গ্রাফিক্স
  • ওয়েবসাইট এবং ব্লগগুলোর জন্য ব্যানার এবং বিজ্ঞাপনের চিত্রসমূহ

বর্তমানে পৃথিবীর যেকোনো দেশের একপ্রান্তে বসে একজন ডিজাইনার হিসেবে কাজ করার সুবিধা রয়েছে। এসব আন্তর্জাতিক প্রজেক্ট নিয়ে কাজ করতে শুধুমাত্র প্রয়োজন ভালো যোগাযোগ দক্ষতা ও দ্রুতগতির ইন্টারনেট সংযোগ। বর্তমানে বাংলাদেশ সরকারি দ্রুতগতির ইন্টারনেট ও নেট বিল কমানোর জন্য কাজ করে যাচ্ছে। মার্কেটিং ডিজাইনারদের চমৎকার যোগাযোগ, সমস্যা সমাধান এবং টাইম ম্যানেজমেন্ট দক্ষতা প্রয়োজন।

বেশ কয়েকটি গ্রাফিক ডিজাইন, লেআউট এবং প্রেজেন্টেশন অ্যাপগুলোতে দক্ষ হওয়ার পাশাপাশি প্রিন্ট এবং অনলাইন টুলস ও সিস্টেম পরিচালনা সম্পর্কেও পরিচিত হতে হবে। নতুন ডিজাইনারদের প্রক্রিয়াগুলো শিখতে এবং মূল্যবান দক্ষতা এবং অভিজ্ঞতা অর্জনের জন্য এই সকল বিষয়ে বেশকিছু দিন সময় দিতে হবে। হতাশ হওয়া যাবে না। লেগে থাকতে হবে।

ইউজার ইন্টারফেস গ্রাফিক ডিজাইন –

Advertisement

ইউজার ইন্টারফেস গ্রাফিক ডিজাইন (ইউআই) হল কিভাবে কোনো ব্যবহারকারী কোনো ডিভাইস বা অ্যাপ্লিকেশনটির সাথে ইন্টারেক্ট করে তাকে বুঝানো হয়। সহজ কথায় ইউআই ডিজাইন হ’ল ডিভাইস ও অ্যাপসের ইন্টারফেসগুলোর ডিজাইন করার প্রক্রিয়া। যা ইলেকট্রনিক ডিভাইস ও অ্যাপ্লিকেশনগুলোর ব্যবহার সহজ করে তোলে এবং ইউজারদের অভিজ্ঞতা কে উন্নত করে।

ইউআই ডিজাইনের সাথে ব্যবহারকারীর স্ক্রিন, কীবোর্ড এবং মাউস এর সাথে ইন্টারঅ্যাক্ট করা সহ সমস্ত কিছু অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। তবে গ্রাফিক ডিজাইনের প্রসঙ্গে ইউআই ডিজাইনটি ব্যবহারকারীর দৃষ্টিভঙ্গি এবং অন-স্ক্রীন গ্রাফিক উপাদানগুলোর বোতাম, মেনু, মাইক্রো এর নকশাকে বুঝানো হয়। প্রযুক্তিগত কার্যকারিতা সহ সৌন্দর্যবোধ সংক্রান্ত অবদান কে ইউআই ডিজাইনারের কাজ বলে ধরে নেওয়া হয়।

Advertisement
ইউজার ইন্টারফেস গ্রাফিক ডিজাইন
ইউজার ইন্টারফেস

ইউআই ডিজাইনাররা ডেস্কটপ অ্যাপস, মোবাইল অ্যাপস, ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন এবং গেমগুলোতে সুন্দর ডিজাইন সরবরাহ করতে কাজ করে। তারা ইউএক্স (ব্যবহারকারীর অভিজ্ঞতা) ডিজাইনারদের (যারা অ্যাপটি কিভাবে কাজ করে তা নির্ধারণ করে) এবং ইউআই ডেভলপারদের (যারা কোড লেখেন) সাথে নিবিড়ভাবে কাজ করেন।

ব্যবহারকারী ইন্টারফেস গ্রাফিক ডিজাইনের উদাহরণ:

  • ওয়েবসাইট ডিজাইন
  • থিম ডিজাইন (ওয়ার্ডপ্রেস, শপিফাই ইত্যাদি)
  • গেম ইন্টারফেস
  • অ্যাপ্লিকেশন ডিজাইন।

পাবলিকেশন গ্রাফিক ডিজাইন –

পাবলিকেশনগুলোর প্রয়োজনীয় ডিজাইন তৈরি করে পাঠকদের সাথে সহজে যোগাযোগ করতে কাজ করে এসব ডিজাইনাররা। পাবলিকেশন প্রতিষ্ঠানগুলো তিহ্যগতভাবে প্রিন্ট ও প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান হিসেবে পাঠকদের কাছে পরিচিত।  প্রকাশনা ডিজাইন বলতে — বই, সংবাদপত্র, ম্যাগাজিন এবং ক্যাটালগগুলো কে বুঝানো হয়।  তবে সম্প্রতি ডিজিটাল প্রকাশনাতে এদের উল্লেখযোগ্য বৃদ্ধি পেয়েছে।

গ্রাফিক ডিজাইনাররা প্রকাশনাগুলোতে বিশেষজ্ঞ, তারা সম্পাদক এবং প্রকাশকদের সাথে যত্ন সহকারে নির্বাচিত টাইপোগ্রাফি এবং সহকর্মী আর্টওয়ার্ক সহ লেআউট তৈরি করতে কাজ করে। যার মধ্যে ফটোগ্রাফি, গ্রাফিক্স এবং চিত্র অঙ্কনের কাজ সহ অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।  প্রকাশনা ডিজাইনাররা ফ্রিল্যান্সার্স হিসাবে সৃজনশীল কোম্পানির সদস্য হিসাবে বা ইন-হাউজ কোনো প্রকাশনা কোম্পানির অংশ হিসাবে কাজ করতে পারে।

প্রকাশনার গ্রাফিক ডিজাইনের উদাহরণ:

  • বই
  • সংবাদপত্র
  • নিউজলেটারস
  • ডিরেক্টরি
  • বার্ষিক প্রতিবেদন
  • পত্রিকা
  • ক্যাটালগ।

প্রকাশনা ডিজাইনারদের অবশ্যই দুর্দান্ত যোগাযোগ, বিন্যাস এবং সাংগঠনিক দক্ষতা অর্জন করতে হবে। গ্রাফিক ডিজাইনের দক্ষতার পাশাপাশি তাদের রঙ পরিচালনা, মুদ্রণ এবং ডিজিটাল প্রকাশনাও বুঝতে হবে।

Advertisement

প্যাকেজিং গ্রাফিক ডিজাইন –

বেশিরভাগ পণ্যগুলোর সংরক্ষণ এবং বিতরণ এবং বিক্রয়ের জন্য তাদের সুরক্ষা এবং প্যাকেট প্রস্তুত করার জন্য কিছু প্যাকেজিং অভিজ্ঞদের প্রয়োজন হয়। প্যাকেজিং ডিজাইনটি গ্রাহকদের মনের সাথে সরাসরি যোগাযোগ করতে পারে। যা এটিকে একটি অত্যন্ত মূল্যবান মার্কেটিংয়ের সরঞ্জাম হিসাবে তৈরি করে। প্রতিটি বাক্স, বোতল এবং ব্যাগ, প্রতিটি ক্যান, ধারক বা ক্যানিস্ট একটি ব্র্যান্ডের গল্প বলার সুযোগ তৈরি করে।

প্যাকেজিং গ্রাফিক ডিজাইন
প্যাকেজিং

ডিজাইনাররা ধারণা তৈরি করে এবং ডিজাইনগুলো প্রস্তুত করে। যেহেতু প্যাকেজিং ডিজাইনটি অনেকগুলো শাখাকে স্পর্শ করে। যেমন- ফটোগ্রাফি, চিত্র।

মোশন গ্রাফিক ডিজাইন –

সহজ কথায় বলতে গেলে, মোশন গ্রাফিক্সগুলো হলো এনিমেশন গ্রাফিক্স। এর মধ্যে অ্যানিমেশন, অডিও, টাইপোগ্রাফি, চিত্র, ভিডিও এবং অন্যান্য ডিজাইনগুলো অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে। যা অনলাইন মিডিয়া, টেলিভিশন এবং ফিল্মে ব্যবহৃত হয়। প্রযুক্তির উন্নতি এবং ভিডিও সামগ্রীর রাজা হওয়ার সাথে সাথে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে মাঝারিটির জনপ্রিয়তা আকাশ ছোঁয়াছে।

“মোশন গ্রাফিক্স ডিজাইনার” ডিজাইনারদের জন্য কিছুটা নতুন বৈশিষ্ট্য নিয়ে আসে। সাধারণত টিভি ও চলচ্চিত্রের জন্য সংরক্ষিত, প্রযুক্তিগত অগ্রগতি উৎপাদন সময় এবং ব্যয় হ্রাস করেছে। যা শিল্পের ক্ষেত্রটিকে আরও অ্যাক্সেসযোগ্য এবং সাশ্রয়ী করে তুলছে। এখন, মোশন গ্রাফিক্স একটি নতুন ধরণের ডিজাইন এবং এটি সমস্ত ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মগুলোতে পাওয়া যায়। যা সকল প্রকারের নতুন ক্ষেত্র এবং সুযোগ তৈরি করেছে।

Advertisement

গতি গ্রাফিক ডিজাইনের উদাহরণ:

  • শিরোনাম এবং ক্রেডিট
  • বিজ্ঞাপন
  • অ্যানিমেটেড লোগো
  • ট্রেলার
  • উপস্থাপনা
  • প্রচারমূলক ভিডিও টিউটোরিয়াল ভিডিও
  • ওয়েবসাইট
  • অ্যাপস
  • ভিডিও গেমস
  • ব্যানার
  • জিআইএফ।

মোশন গ্রাফিক্স ডিজাইনার স্টোরিবোর্ডগুলো ডেভেলপ করে এবং তারপরে অ্যানিমেশন, ভিডিও এবং তিহ্যবাহী শিল্প দিয়ে তাদের ধারণাগুলো জীবনে নিয়ে আসে। শিল্পের উপর নির্ভর করে মার্কেটিং, কোডিং এবং 3D মডেলিংয়ের একটি শক্তিশালী জ্ঞান সুনির্দিষ্ট সম্পদ হতে পারে।

এনভায়রনমেন্টাল গ্রাফিক ডিজাইন –

Advertisement

পরিবেশগত গ্রাফিক ডিজাইন কোম্পানিগুলো কে আরও স্মরণীয়, আকর্ষণীয়, তথ্যমূলক বা নেভিগেট করা সহজ করে। তাদের সামগ্রিক অভিজ্ঞতা উন্নত করতে দৃশ্যগুলো কোম্পানিগুলোতে সংযুক্ত করে। পরিবেশগত নকশা একটি বিস্তৃত নকশা, এখানে কিছু উদাহরণ রয়েছে:

এনভায়রনমেন্টাল গ্রাফিক ডিজাইনের উদাহরণ:

  • স্বাক্ষর
  • ওয়াল ম্যুরাল
  • যাদুঘর প্রদর্শনী
  • অফিস ব্র্যান্ডিং
  • পাবলিক ট্রান্সপোর্ট নেভিগেশন
  • অভ্যন্তরীণ সজ্জা
  • স্টেডিয়াম ব্র্যান্ডিং
  • ইভেন্ট এবং সম্মেলনের স্থান।

ওয়াইফাইন্ডিং একটি নির্দিষ্ট ধরণের পরিবেশগত গ্রাফিক ডিজাইন। যা কৌশলগত স্বাক্ষর, ল্যান্ডমার্কস এবং ভিজ্যুয়াল ইঙ্গিতগুলো নিয়ে গঠিত। যা লোকেরা কোথায় যেতে হবে সেগুলো সনাক্ত করতে সহায়তা করে। যাতে তারা কোনো বিভ্রান্তি ছাড়াই সেখানে যেতে পারে।

এনভায়রনমেন্টাল গ্রাফিক ডিজাইন গ্রাফিক, আর্কিটেকচারাল, ইন্টিরিওর, ল্যান্ডস্কেপ এবং শিল্প নকশাকে মার্জ করে এমন একটি বহুমাত্রিক অনুশীলন। ডিজাইনাররা তাদের ডিজাইনগুলো পরিকল্পনা এবং বাস্তবায়নের জন্য এই ক্ষেত্রগুলোর যে কোনও সংখ্যক লোকের সাথে সহযোগিতা করে। যে কারণে ডিজাইনারদের সাধারণত গ্রাফিক ডিজাইন এবং আর্কিটেকচার উভয় ক্ষেত্রেই শিক্ষা এবং অভিজ্ঞতা থাকে। তাদের অবশ্যই শিল্প নকশার ধারণার সাথে পরিচিত হতে হবে এবং স্থাপত্য পরিকল্পনাগুলো পড়তে এবং স্কেচ করতে সক্ষম হতে হবে।

Advertisement

তিহ্যগতভাবে, এনভায়রনমেন্টাল গ্রাফিক ডিজাইন প্রিন্টের টুকরোগুলো তৈরি করে। তবে ডিজিটাল ইন্টারেক্টিভ প্রদর্শনগুলো আরও আকর্ষক অভিজ্ঞতা তৈরির মাধ্যম হিসাবে জনপ্রিয়তায় বাড়তে থাকে।

গ্রাফিক ডিজাইনের জন্য শিল্প ও চিত্রণ –

আর্ট এবং চিত্রগুলোর কাজ কে প্রায়শই গ্রাফিক ডিজাইনের সমতুল্য হিসাবে দেখা হয়। তবে অনেক দিক থেকে সেগুলো একেবারেই আলাদা। ডিজাইনারগণ যোগাযোগ ও সমস্যাগুলো সমাধানের জন্য আর্ট তৈরি করে, গ্রাফিক শিল্পী এবং চিত্রকরগণ মূল শিল্পকর্ম তৈরি করে। তাদের শিল্প থেকে শুরু করে গল্প বলার চিত্রগুলোতে অনেকগুলো রূপ নেয়। গ্রাফিক আর্ট এবং ইলাস্ট্রেশন প্রযুক্তিগতভাবে গ্রাফিক ডিজাইনের ধরণের না হলেও গ্রাফিক ডিজাইনের প্রেক্ষাপটে বাণিজ্যিক ব্যবহারের জন্য এত কিছু তৈরি করা হয়েছে।

গ্রাফিক ডিজাইনের জন্য শিল্প ও চিত্রের উদাহরণ:

  • টি-শার্টের নকশা
  • টেক্সটাইল জন্য গ্রাফিক নিদর্শন
  • মোশন গ্রাফিক্স
  • স্টক ইমেজ
  • চিত্রপোন্যাস
  • ভিডিও গেমস
  • ওয়েবসাইট
  • কমিক বই
  • অ্যালবাম আর্ট
  • বইয়ের কভার
  • ছবির বই
  • ইনফোগ্রাফিক্স
  • প্রযুক্তিগত উদাহরণ
  • ধারণা শিল্প।

গ্রাফিক শিল্পীরা তাদের কাজ তৈরি করতে মিডিয়া এবং কৌশলগুলোর যে কোনও সংমিশ্রণ ব্যবহার করেন। কারণ তারা লেখক, সম্পাদক, পরিচালক, মার্কেটার এবং সমস্ত গ্রাফিক ডিজাইনের ধরণের জুড়ে আর্ট ডিরেক্টরদের সাথে সহযোগিতা করে। তাদের প্রায়শই চারুকলা, অ্যানিমেশন বা আর্কিটেকচারে একটি ভিত্তি থাকে।  ওভারল্যাপিং দক্ষতা এবং অ্যাপ্লিকেশনগুলো গ্রাফিক ডিজাইনারের কাজ। যারা গ্রাফিক শিল্পী এবং চিত্রকর (এবং তদ্বিপরীত) হিসাবেও কাজ করে তাদের সন্ধান করা সম্ভব করে।

এতক্ষণ পর্যন্ত আমরা গ্রাফিক ডিজাইনের ৮ টি প্রকার নিয়ে আলোচনা করলাম। যারা এই পেশায় কাজ করতে চান, তাদের জন্য ৮টি প্রকার সম্পর্কে জানা গুরুত্বপূর্ণ ছিলো। এজন্য এসব প্রকার নিয়ে আলোচনা করলাম।

Advertisement

গ্রাফিক ডিজাইন কোর্স –

যাদের ডিজাইন বিষয়ে অভিজ্ঞতা নেই। তারা ইচ্ছে করলে বিভিন্ন ইনস্টিটিউট থেকে শিক্ষা নিতে পারেন। বাংলাদেশ বর্তমানে অনেকগুলো সুনামধন্য ডিজাইন শিখার প্রতিষ্ঠান রয়েছে। প্রশিক্ষণ গ্রহণ করার জন্য আপনার যেকোনো একটা বিষয়ে শিখতে হবে। একসাথে একাধিক সেক্টর নিয়ে এগোতে গেলে জটিল মনে হবে। তাই যদি আপনি গ্রাফিক ডিজাইনার হিসেবে ক্যারিয়ার গড়তে চান, তাহলে পছন্দের যেকোনো একটা বিষয় নিয়ে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করুন।

কয়েকটি জনপ্রিয় প্রতিষ্ঠানের নাম:

বহুব্রীহি হচ্ছে বাংলাদেশের একটা প্রতিষ্ঠান। এখানে অভিজ্ঞ শিক্ষকদের দিয়ে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়। যারা সরাসরি আপনাকে শিখানোর পাশাপাশি আয় করার ব্যবস্থা করে দিবেন। আর আপনি যদি ইংরেজি ভাষা বুঝতে পারেন, তাহলে ইউডেমি ও কোর্সেরা থেকে কোর্স করতে পারেন।

  • ডিজাইনার হিসেবে কত টাকা আয় করা যায়?
  • গ্রাফিক ডিজাইনের ভবিষ্যৎ কেমন হবে?
  • কোথায় কোথায় এসব কাজ পাওয়া যায়?

উপরের সকল প্রশ্নের উত্তর ও আপনাদের মনে থাকা সকল প্রশ্নের উত্তর পাওয়ার জন্য আমাদের কমেন্ট করুন। আপনাদের আগ্রহ দেখে আমরা এই লেখাটি আপডেট করবো। যেন এখান থেকে আপনার আরও তথ্য সংগ্রহ করতে পারেন।

Advertisement
bdbloq site icom

একজন ইলেক্ট্রিক্যাল বিষয়ে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে সবসময় টেকনোলজি কে অগ্রাধিকার দিতে ভালোবাসি। প্রযুক্তির সাথে এগিয়ে যেতে ও নিজেকে সবসময় আপডেট রাখার জন্য নিয়মিত প্রযুক্তিগত জ্ঞান নিজে অর্জনের পাশাপাশি অন্যদের সাথে শেয়ার করাতে ভালো লাগে। সময় পেলে প্রযুক্তি, ব্যবসা, মার্কেটিং বিষয়ে লিখতে চেষ্টা করি। পেশা যাই হোক, তা হতে লাভবান হতে চাইলে ব্যবসা ও মার্কেটিং জ্ঞান আবশ্যক।

বাক্সে আপনার মতামত লিখে জানান