amazon income

Amazon income : আমাজন থেকে আয় করার ৫টি সেরা উপায়

Advertisement

আমাজন থেকে আয় ( Amazon income ) করার ৫টি সেরা উপায় নিয়ে লিখতে যাচ্ছি। যদি আপনি আগে না জেনে থাকেন যে, আমাজন থেকে কি কি উপায়ে আয় করা যায়, তাহলে আজকের লিখা আপনার জন্য। অনলাইন জগতের বিশ্বসেরা ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান হচ্ছে আমাজন। এটি jeff bezos এর প্রতিষ্ঠিত একটি অনলাইন কোম্পানি।  সারা বিশ্বের মধ্যে এই কোম্পানি গ্রাহকদের সেবা দেওয়ার মাধ্যমে তুমুল জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে।  এমনকি এই কোম্পানির মাধ্যমে jeff bezos  বিশ্বের সেরা ধনী হিসেবে সবার মাঝে পরিচিত। 

আমাজন গ্রাহকদের মাঝে এমন একটা জনপ্রিয় ই-কমার্স ওয়েবসাইট, যখন ক্রেতা কোন কিছু ক্রয় করার চিন্তা করেন, প্রথমে চেষ্টা করেন আমাজন থেকে পণ্যটি ক্রয় করা যায় কিনা। কারণ, আমাজন গ্রাহকদের কাছে থেকে এমনিতেই জনপ্রিয়তা অর্জন করেননি। তারা তাদের সার্ভিস এবং কাজের মাধ্যমে এতো বেশি গ্রাহকদের কাছে জনপ্রিয়।

Amazon income পদ্ধতি কি?

আমাদের কাছে Amazon থেকে ইনকাম ( Amazon income ) করার বেস্ট পদ্ধতি হচ্ছে একটা। যেটা সবার কাছে চিরচেনা এবং বিশ্বক্ষেত একটি নাম “আমাজন এফিলিয়েট মার্কেটিং”। অথচ Amazon affiliate ইনকাম থেকেও আরও অনেক জনপ্রিয় মাধ্যম রয়েছে। যার মাধ্যমে Amazon থেকে আরও বেশি আয় করা সম্ভব। সুতরাং আজকে আমরা জেনে নিব আমাজন থেকে আয় করার ৫টি সেরা উপায় সম্পর্কে।

১. “Amazon Flex” এর মাধ্যমে পণ্য ডেলিভারি করে আয়-

আপনি যদি বিভিন্ন অঞ্চল ভ্রমণ করতে ভালোবাসেন, তাহলে আমাজনের হয়ে একজন কুরিয়ার ম্যান বা পণ্য ডেলিভারি ম্যান হিসেবে কাজ করে আমাজন থেকে অনেক টাকা আয় করতে পারেন। বিশ্বসেরা ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান আমাজনের হয়ে একজন কুরিয়ার ম্যান হিসেবে আপনি চাইলে আজকেই জয়েন করতে পারেন।

amazon income ways
amazon income ways

এখানে আপনি স্বাধীন হয়ে কাজ করতে পারবেন। আপনার ইচ্ছে মতো সময় নিয়ে একটি স্বাধীন সিডিউল তৈরি আপনি কুরিয়ার ম্যান হয়ে ক্যারিয়ার গড়তে পারেন। আপনি চাইলে এটাকে পার্ট টাইম অথবা ফুলটাইমার কাজ হিসেবে করতে পারেন। এই কাজের জন্য প্রতি ঘন্টায় ১৮ থেকে ২৫ ডলার পেমেন্ট করা হয়।

২. আমাজন ভার্চুয়াল চাকরি করে আয় করুণ ( Best Amazon income ) –

আপনার যদি কাস্টমার সাপোর্ট, সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং ইত্যাদি বিষয়ে দক্ষতা থাকে, তাহলে আপনি ঘরে বসে আমাজনের হয়ে ভার্চুয়াল লোকেশন চাকরি করতে পারেন। এই চাকরির গুলো সকল লোকেশনের জন্য সক্রিয় থাকেনা। সুতরাং আপনি আমাজন ওয়েবসাইটের ভার্চুয়াল চাকরির লিংকটি ভিজিট করেই, আপনার পছন্দের চাকরিটির জন্য লোকেশন দেখে আবেদন করতে পারেন।

৩. হাতের তৈরি পণ্য দিয়ে আমাজন থেকে আয় করুণ ( Amazon income ) –

আপনি যদি হ্যান্ডিক্রাফট নিয়ে কাজ করে থাকেন, বা হাতের তৈরি বিভিন্ন পণ্য বা ব্যব্যহার সামগ্রী আপনি তৈরি করতে পারেন। তাহলে আপনি আমাজনের হয়ে কাজ করতে পারেন। আপনি পণ্য বা বিভিন্ন ব্যবহার সামগ্রী তৈরি করে আমাজনে দিয়ে দিবেন।

আমাজন আপনার হয়ে দায়িত্ব নিবে পণ্য বা সামগ্রী সমূহ বিক্রি করার জন্য। এর জন্য আপনাকে আমাজনের “HandMade” লিঙ্কে গিয়ে রেজিষ্ট্রেশন করতে হবে।

৪. আমাজন এফিলিয়েট এর মাধ্যমে আয় করুণ –

এফিলিয়েট মার্কেটিং সম্পর্কে তেমন কিছু বলার নেই। কারণ, আমি জানি ইতিমধ্যে আপনি আমার থেকেও বেশি জানেন এফিলিয়েট মার্কেটিং সম্পর্কে। যদি আপনি এখনও এফিলিয়েট মার্কেটিং সম্পর্কে না জানেন, তাহলে আপনি আমার ওয়েবসাইটটির আরও বিভিন্ন পোষ্ট গুলো পড়ার চেষ্টা করুণ।

Advertisement

BLUEHOST AFFILIATE MARKETING সম্পর্কে জানতে ভিজিট করুন।

৫. Amazon kindle publisher হয়ে আয় করুণ –

Advertisement

আপনি যদি বিভিন্ন বিষয় লেখালেখি করতে ভালোবাসেন, তাহলে আপনি amazon kindle publishing করে Amazon থেকে খুবই ভালো পরিমাণ টাকা আয় ( Amazon income ) করতে পারেন। এর জন্য আমাজন আপনাকে ৭০% পেমেন্ট করবে। এটি করার জন্য আপনাকে আপনার বইটি লিখতে হবে।

তারপর বই লেখা শেষে সবকিছু “amazon kindle publishing” লিঙ্কে গিয়ে জমা দিতে হবে। তাহলেই আপনার কাজ শেষ। যতগুলো কপি বিক্রি হবে সবগুলো থেকে আপনি ৭০% কমিশন পেয়ে যাবেন।

আশা করি আজকের পাঁচটি আইডিয়া আপনাদের সবার ভালো লেগেছে। অ্যামাজন থেকে অর্থ উপার্জন করার জন্য আরো অনেকগুলো কার্যকর কৌশল রয়েছে। যেগুলো আমরা পরবর্তীতে আলোচনা করতে চেষ্টা করব। ইতিমধ্যে আমরা অ্যামাজন থেকে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে কিভাবে অর্থ উপার্জন করতে হয় সে বিষয়ে একটি আর্টিকেল পাবলিশ করেছি। এছাড়াও আমাদের এক ব্লগ সাইটে আপনি ক্যারিয়ার গড়ার অনেকগুলো কার্যকর কৌশল ও উপায় পেয়ে যাবেন। 

Advertisement

Md thouhidul islam tawhid - seo and digital marketing

একজন ইলেক্ট্রিক্যাল বিষয়ে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে সবসময় টেকনোলজি কে অগ্রাধিকার দিতে ভালোবাসি। প্রযুক্তির সাথে এগিয়ে যেতে ও নিজেকে সবসময় আপডেট রাখার জন্য নিয়মিত প্রযুক্তিগত জ্ঞান নিজে অর্জনের পাশাপাশি অন্যদের সাথে শেয়ার করাতে ভালো লাগে। সময় পেলে প্রযুক্তি, ব্যবসা, মার্কেটিং বিষয়ে লিখতে চেষ্টা করি। পেশা যাই হোক, তা হতে লাভবান হতে চাইলে ব্যবসা ও মার্কেটিং জ্ঞান আবশ্যক।

নিচের বাক্সে আপনার মতামত লিখে জানান।