কাতার বিশ্বকাপের বিরুদ্ধে কথা বলেছেন যে পাঁচজন খেলোয়াড়!

টুর্নামেন্টের আগে দেশে মানবাধিকার লঙ্ঘন এবং শ্রমিকদের মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে।

কাতার বিশ্বকাপ-২০২২ এর আয়োজনের জন্য স্টেডিয়াম নির্মাণে করতে গিয়ে কাতারের বিরুদ্ধে মানবাধিকার লঙ্ঘনের বিষয় উঠে এসেছে।

বেশ কয়েকটি অ্যাসোসিয়েশন এবং অ্যাক্টিভিস্ট কাতারকে অভিযুক্ত করেছেন যে, প্রকল্পের কর্মীদের বিপদজনক অবস্থায় কাজ করার অনুমতি দিয়েছে।

স্বাগতিক দেশটি কর্মীদের এবং তাদের অবস্থার প্রতি যত্নবান হওয়ার বিষয়ে অসতর্ক হচ্ছে বলে জানা গেছে।

“অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল” সম্প্রতি স্থানীয় ঠিকাদারদের শোষণমূলক কার্মকাণ্ড লক্ষ্য করে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে।

এটি পরামর্শ দিয়েছে যে বিশ্বকাপ সম্পর্কিত অবকাঠামো নির্মাণের জন্য দায়ী অভিবাসী শ্রমিকদের শোষণ করা হচ্ছে।

তারা ন্যায্য বেতন এবং জীবনযাপনের শর্ত ছাড়াই দীর্ঘ সময় কাজ করছে। আয়োজক কমিটি এখনও পর্যন্ত ৩৮ জনেরও বেশি কর্মীর মৃত্যুর খবর দিয়েছে।

কাতারে ফিফা বিশ্বকাপকে ঘিরে মানবাধিকার লঙ্ঘন ও বিতর্কের কারণে বিশ্বজুড়ে খেলোয়াড়রা তাদের ভিন্নমত প্রকাশ করেছেন।

অনেক উচ্চ ব্যক্তিত্ব সম্পন্ন খেলোয়াড় প্রকাশ্যে কাতার বিশ্বকাপ ফুটবল-২০২২ আয়োজক সংগঠনের বিরুদ্ধে কথা বলেছেন।

এখানে কাতারে ফিফা বিশ্বকাপ আয়োজনের বিরুদ্ধে কথা বলেছেন পাঁচজন খেলোয়াড়।

৫। লিওন গোরেটজকা (Leon Goretzka)

জার্মানির খেলোয়াড়রা কাতারে ফিফা বিশ্বকাপ আয়োজনের বিরুদ্ধে খুবই সোচ্চার।

বিবৃতি দেওয়ার জন্য তারা প্রায়শই তাদের প্রাক-ম্যাচ প্রশিক্ষণের সময় সমালোচনামূলক বার্তা সহ জার্সি পরেছে।

এমনই একজন খেলোয়াড় হলেন জার্মান আন্তর্জাতিক এবং বায়ার্ন মিউনিখের তারকা লিওন গোরেটজকা
জার্সির বার্তা উল্লেখ করার সময় বলেছিলেন। গোরেৎজকা তার বাকি সতীর্থদের সাথে তাদের ক্রিয়াকলাপে কাতার বিশ্বকাপ আয়োজনে, মানবাধিকার লঙ্ঘনের কারণে তাদের অনেক ক্ষোভের সৃষ্টি করেছিল।

. উইলিয়াম কেভিস্ট (William kvist)

William kvist

কেভিস্ট একজন প্রাক্তন ডেনমার্ক আন্তর্জাতিক, যিনি বর্তমানে “এফসি কোপেনহেগেন” এর ক্রীড়া বিষয়ক ভারপ্রাপ্ত পরিচালক।

তিনি কাতার বিশ্বকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট এবং শ্রমিকদের অবস্থার একজন সোচ্চার সমালোচক ছিলেন।

তিনি বলেছিলেন, “আমাদের জন্য ১২ টি স্টেডিয়াম তৈরি করতে হাজার হাজার শ্রমিককে জীবন দিয়ে দিতে হবে, এর সাথে বিশ্বকাপ ফুটবলের কোনো ধরনের সম্পর্ক নেই,”।

ডেনমার্ক ও নরওয়ের মতো স্ক্যান্ডিনেভিয়ান দেশগুলো কাতারে ফিফা বিশ্বকাপ আয়োজনের তীব্র বিরোধিতা করেছে।

মানবাধিকার লঙ্ঘনই তাদের অবস্থানের প্রধান কারণ। তারা “পিচ অন এবং অফ দ্য হিউম্যান রাইটস” এর মতো বার্তা সহ জার্সি পরেছে।

এফসি কোপেনহেগেনের আরেক খেলোয়াড়, নরওয়েজিয়ান টম হোগলি বলেছেন, “কাতারে কাজের অবস্থা দুর্ভাগ্যবশত নিষ্ঠুর”

৩৷ জোশুয়া কিমিচ (Joshua kimmich)

Joshua kimmich

“জার্মান ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন” কাতারের টুর্নামেন্ট বয়কটের পক্ষে নয়।

তবে জোশুয়া কিমিচ জাতীয় দলের একজন প্রধান ব্যক্তিত্ব এবং ফিফা বিশ্বকাপের আয়োজক কাতারের কঠোর সমালোচকও।

কাতারে ফিফা বিশ্বকাপ নিয়ে কথা বলার সময় কিমিচ বলেন, “আমার মনে হয় বিশ্বকাপ বয়কট করতে আমরা ১০ বছর দেরি করে ফেলেছি।”

“ফুটবলার হিসেবে আমাদের একটা নির্দিষ্ট দায়িত্ব আছে বিষয়গুলো নিয়ে কথা বলা।

। থিয়েরি হেনরি (Thierry Henry)

Thierry Henry

ফরাসি কিংবদন্তি থিয়েরি হেনরিও আয়োজক দেশ কাতারের সমালোচনা করেছেন এবং ফেডারেশনগুলিকে আরও বড় পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন৷

ফ্রান্সের সাথে ১৯৯৮ সালে এই ফিফা বিশ্বকাপ জয়ী বলেছেন যে, “প্রথম এবং সর্বাগ্রে, খেলোয়াড়রা এবং ফেডারেশন কি করেছে সে সম্পর্কে আমাকে বলতে দিন, এটি দুঃখজনক ছিল।

১। টনি ক্রুস (Toni Kroos)

Toni Kroos

রিয়াল মাদ্রিদের তারকা টনি ক্রুস একজন প্রতিবাদী কণ্ঠসর সম্পন্ন ব্যক্তিত্ব যখন এই বিষয়ে আসে এবং জার্মান আন্তর্জাতিকও তার স্বদেশীদের সাথে কথা বলার জন্য যোগ দেয়।

এই মিডফিল্ডার শুধু কর্মীদের শর্তের বিরুদ্ধেই নয়, তিনি মনে করেন কাতারে ফিফা বিশ্বকাপ-২০২২ আয়োজন করা উচিত নয়।

এবং তিনি বলেন “এই টুর্নামেন্টটি কাতারের মত রক্ষণশীল দেশে আয়োজন করা, আমি এটিকে ভুল বলে মনে করি,”।

তিনি আরো বললেন “আপনাকে প্রশ্ন করতে হবে: এই ধরনের একটি বিশ্বকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট বয়কট কী ধরনের প্রভাব নিয়ে আসবে?

এটা কি সত্যিই এমন কিছু যে সেখানে ব্যাপকভাবে উন্নতি হবে? কাজের অবস্থার পরিবর্তন হবে? আমি বিশ্বাস করি না।

ক্রুস বিশ্বাস করেন যে মানবাধিকার লঙ্ঘনের বিষয়টি এবং শ্রমিকদের শোচনীয় অবস্থার দিকে আরও মনোযোগ দেওয়া দরকার।

এই পরিসংখ্যানগুলি ছাড়াও, নেদারল্যান্ডস স্কোয়াড সম্মিলিতভাবে এই বিষয়টি উত্থাপন করেছে। ইংল্যান্ডের ম্যানেজার গ্যারেথ সাউথগেট এবং ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন (এফএ) কাতারে শ্রমিকদের পরিস্থিতি নিয়ে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের সাথে সংলাপ করছে।