জার্মানিতে উচ্চশিক্ষার সুবিধা এবং অসুবিধা।

আমার আজকের লিখাটি কাজে আসবে তাদের , যারা ভবিশ্যতে পড়াশুনার জন্য জার্মানিতে আসতে চাই। দেশের বাহিরে যদি পড়তে যাই, তাহলে অনেক দেশ আছে। আমরা আজেকে কেবল একটা দেশ নিয়ে কথা বলবো । আর সেটা হচ্ছে …

আমার আজকের লিখাটি কাজে আসবে তাদের , যারা ভবিশ্যতে পড়াশুনার জন্য জার্মানিতে আসতে চাই।

দেশের বাহিরে যদি পড়তে যাই, তাহলে অনেক দেশ আছে। আমরা আজেকে কেবল একটা দেশ নিয়ে কথা বলবো । আর সেটা হচ্ছে জার্মানি।

একজন শিক্ষার্থী হিসেবে, জার্মানিতে উচ্চশিক্ষার সুবিধা এবং অসুবিধা অর্থাৎ কেন আপনাকে জার্মানি বেঁচে নেওয়া উচিৎ আর কেন উচিৎ নয় ।

অর্থাৎ কোন কোন সুবিধার জন্য আপনাকে পড়াশুনার জন্য জার্মানি বেঁচে নেওয়া উচিৎ আর কোন কোন অসুবিধার জন্য আপনাকে জার্মানি বাদ দিয়ে দেওয়া উচিত । আজ আমরা সেটা বিস্তারিত জানবো ।

সুবিধাগুলো :

1. কোন টিউশন ফি নেই.

আপনি যদি জার্মানিতে অধ্যয়নরত একজন ছাত্রকে জিজ্ঞেস করেন যে সে জার্মানিতে কেন? তাই আমি অনুমান করি তিনি আপনাকে উত্তর দেবেন:

তার মানে আপনি জার্মানিতে বিনামূল্যে পড়াশোনা করতে পারবেন। তবে একটি সেমিস্টার ফি আছে।

এর মানে হল যে, আপনি যে ইউনিভার্সিটির লাইব্রেরিটি ব্যবহার করছেন,

Higher Education in Germany

যে পরিবহনটি ব্যবহার করছেন তার জন্য আপনাকে প্রতি ৬ মাসে বা ১ বছরে একবার ফি দিতে হবে।

আমি আপনাকে একটি পরিসংখ্যান দিতে পারি. এটা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপর নির্ভর করে। যাইহোক, এটি ২৮০ থেকে ৩০০ ইউরো এর বেশি হবে না।

২. সহজ ভিসা প্রসেসিং:

অনেক শিক্ষার্থী মনে করেন, বিদেশে পড়াশুনা করা খুবই কঠিন বিষয়। কিন্তু এখানে মজার বিষয় হল, জার্মানির ক্ষেত্রে এটা খুবই সাধারণ ব্যাপার।

আপনি তৃতীয় পক্ষের সাহায্য ছাড়াই জার্মানিতে আসার পুরো প্রক্রিয়াটি করতে পারেন।

আপনি জার্মানিতে কোন কোর্স করতে চান? কোন কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে এই কোর্স শেখান? এই কোর্সে ভর্তির সময় কখন? ইত্যাদি যেকোনো তথ্যের জন্য,

যেকোনো ধরনের পরামর্শের জন্য আপনাকে www.daad.de যেতে হবে।

এই ওয়েবসাইটটি জার্মান ভাষায় লেখা। তবে, আপনি এটি ইংরেজিতে অনুবাদ করতে পারেন। এখানে দেখবেন কবে ভর্তি হয়? কি কি যোগ্যতা লাগে ? আপনার কি কি নথিপত্র প্রয়োজন?

৩. অফার লেটারের পর :

আপনি যখন আবেদন করবেন। যখন অফার লেটার আসবে আপনার কাছে। অফার লেটারের পর ভিসা প্রসেসিং খুবই সহজ।

এর জন্য আপনি dhaka.diplo.de ওয়েবসাইটটি ভিজিট করুন।

এখানে আপনি আপনার প্রয়োজনীয় নথিগুলি পরীক্ষা করবেন। এবং আপনি সেই অনুযায়ী আপনার নথিগুলি গুছিয়ে নিন।

একটি বিষয় নিশ্চিত যে, কোভিড-১৯ এর আগে ভিসা প্রক্রিয়া খুবই সহজ ছিল। কিন্তু, কোভিড-১৯-এর পর প্রক্রিয়াটি ধীরগতির হয়ে গেছে।

সাধারণত এই ভিসা প্রসেস করতে বেশি সময় লাগে না। কিন্তু কোভিড-১৯ এর পর সময় লাগছে। কোভিড-১৯ এর প্রবণতা কমলে এই প্রক্রিয়াটি আগের মতোই দ্রুত হবে বলে আশা করছি।

৪. স্কলারশীপ:

প্রথমে জেনে রাখা ভালো যে, স্কলারশীপ দেওয়া হয় মূলত টিউশন ফি এর উপর নির্ভর করে। যেহেতু জার্মানিতে কোনো টিউশন ফি নেই, তাই স্কলারশিপ পাওয়া একটু কঠিন।

তারপরেও, দুটি বৃত্তি রয়েছে, একটি “DAAD SCHOLARSHIP” অন্যটি Lumos Scholarship.

৫. পার্ট-টাইম জব :

জার্মানিতে আসা বেশিরভাগ শিক্ষার্থীকে পার্টটাইমের ওপর নির্ভর করতে হয়।

এই খণ্ডকালীন কাজের মূল বিষয় হল আপনি একজন ছাত্র হিসাবে সপ্তাহে ২০ ঘন্টা কাজ করতে পারেন।

বার্ষিক, আপনি যদি সারা দিন কাজ করেন তবে আপনি ১২০ দিন কাজ করতে পারবেন।

এটি দিয়ে, আপনি এখানে আপনার টিউশন ফি
ভালোভাবে সামলাতে পারবেন।

আপনি চাইলে এখান থেকে সংসারের খরচও চালাতে পারেন। এখানকার শিক্ষার্থীরা সাধারণত রেস্টুরেন্ট, হাসপাতাল, খাবার সরবরাহ ইত্যাদিতে কাজ করেন। এই পার্ট টাইম জবের জন্য কিভাবে সিভি (CV) তৈরি করতে হয় জানতে চাইলে এখানে ক্লিক করুন

৬। ভ্রমণ :

জার্মানিতে উচ্চশিক্ষার সুবিধার মধ্যে সবচেয়ে মজাদার বিষয় হলো ভ্রমণ সুবিধা। আপনি শেনজেন ভুক্ত যে ২৬ টি দেশ রয়েছে, আপনি সহজেই সেই দেশগুলিতে ভ্রমণ করতে পারেন।

আমরা যেভাবে বাসে করে দেশের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে ভ্রমণ করি আপনি সেভাবে ভ্রমণ করতে পারবেন । এটার জন্য আপনাকে আর কোনো ভিসা লাগবে না ।

৭। সেটেলম্যান্ট:

আমাদের অনেকের মনেই একটা চিন্তা আছে যে আমরা পড়াশুনা করে এখানে স্থায়ী হবো।

জার্মানিতে সেটেল হওয়ার ব্যাপারটা হল আপনাকে আগে পড়াশোনা শেষ করতে হবে।

আপনার পড়াশোনা শেষ করার পর আপনাকে ১৮ মাস সময় দেওয়া হবে।

এই ১৮ মাসের মধ্যে, আপনি যে বিষয়ে অধ্যয়ন করছেন তার সাথে সম্পর্কিত একটি চাকরি খুঁজতে হবে। আপনার স্টুডেন্ট ভিসা তখন একটি কাজের ভিসায় রূপান্তরিত হবে।

অসুবিধা:

জার্মানিতে উচ্চশিক্ষার সুবিধা সর্ম্পকে তো জানলেন। এই সমস্ত সুবিধার সাত্ত্বেও, আপনি যদি আপনার পছন্দের তালিকা থেকে জার্মানিকে বাদ দিতে চান তবে সেটি হবে জার্মান ভাষা।

কারণ আপনি এখানে ইংরেজি পড়তে পারেন কিন্তু আপনি কিছুই উপভোগ করতে পারবেন না।

আপনার প্রয়োজন না হলে জার্মানরা আপনার সাথে ইংরেজিতে কথা বলবে না। এটি একটি সমস্যা যা আপনাকে বিরক্ত করবে।

বাক্সে আপনার মতামত লিখে জানান