ওয়েবসাইট তৈরি করার নিয়ম: ৪টি ধাপে তৈরি করুন ওয়েবসাইট

ব্যবসা বানিজ্য নিজের পোর্টফলিও বা কোম্পানির জন্য বর্তমান সময়ে ওয়েবসাইট খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তাই ওয়েবসাইট তৈরি করার নিয়ম আমাদের জানা উচিত।। আমি মনে করি, ওয়েবসাইট কিভাবে বানাবো তা জানা একজন ডিজিটাল উদ্যোক্তার একটি মৌলিক বিষয়।

ওয়েবসাইট তৈরি করার নিয়ম
ওয়েবসাইট তৈরি করার নিয়ম

বর্তমান সময়ে নিজের ব্যবসা শুরু না করার আগে। নিজের ব্যবসার জন্য ওয়েবসাইট তৈরি করাটাই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ আপনার কোম্পানির পরিচিতি ও মার্কেটিংয়ের মাধ্যমে ওয়েবসাইট থেকেই বর্তমানে ৩০% এর বেশি অর্ডার পাওয়া যায়।

ই-কমার্স বিজনেস হলেতো কোন কথায় নেই। আপনার শতভাগ বিক্রয় সংগ্রহ করতে হবে অনলান থেকে। আর এটা করা সম্ভব হবে একমাত্র ওয়েবসাইটের মাধ্যমে। আপনি দেশের এক কোনায় বসে সারাবিশ্ব জুড়ে ব্যবসা করতে পারবেন শুধুমাত্র ওয়েবসাইটের মাধ্যমে।

সুতরাং জেনে নেওয়া যাক, ওয়েবসাইট তৈরি করার নিয়ম:

এখানে আমরা ওয়েবসাইট তৈরির চারটি ধাপ নিয়ে আলোচনা করবো। তবে কিভাবে স্টেপ বাই স্টেপ সাইট তৈরি করতে হবে তা প্রাক্টিক্যাল দেখানো হবেনা।

০১. ডোমেইন নাম সিলেকশন:

ডোমেইন হচ্ছে ওয়েবসাইটের এড্রেস। এটা ছাড়া কেউ আপনার ওয়েবসাইটকে চিনবে না এবং কেউ আপনার ওয়েবসাইট খোঁজেও পাবেনা। তাই ডোমেইন নাম সিলেকশন খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এছাড়াও একটা ডোমেইন নাম সিলেকশনের পিছনে অনেকগুলো কারণ রয়েছে।

একটা ভালো ডোমেইন সিলেক্ট করতে না পারলে আপনার সফলতা পেতে বেশি সময়ের প্রয়োজন হবে। তাই সময় নিয়ে রিচার্জ করে ডোমেইন খোঁজে নিতে হবে।

ভালো ডোমেইন নামের কিছু বৈশিষ্ট্য:

  • ১০টি অক্ষরের মধ্যে হলে ভালো হয়, তবে ২০টি অক্ষরের বেশি নয়।
  • সহজে মনে রাখার মতো হওয়া উচিত।
  • বানান খুবই সহজ হতে হবে।
  • কাজের ধরনের উপর নির্ভর করে এক্সটেনশন যুক্ত করা।
  • ব্রান্ড নাম সিলেকশন করা
  • মাঝখানে কোনো চিহ্ন বা প্রতীক ব্যবহার না করা ইত্যাদি।

০২. ডোমেইন ও হোস্টিং রেজিষ্ট্রেশন করা:

ডোমেইন রেজিষ্ট্রেশনের সময় একসাথে হোস্টিং সহ রেজিষ্ট্রেশন করতে কাজটা সহজ হয়ে যায়। তাই দুটি আলাদা আলাদা করে রেজিষ্ট্রেশন না করে একসাথে রেজিষ্ট্রেশন করতে চেষ্টা করবেন।

তবে সতর্ক থাকুন! হোস্টিং রেজিষ্ট্রেশনের আগে থেকে ভালো হোস্টিং নিচ্ছেন কি-না। এটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। যারা একটা ভালো হোস্টিং কোম্পানির সার্ভিস নিতে ব্যর্থ হয়। তারা তাদের ওয়েবসাইটে সহজে সফলতা পাইনা।

দূর্বল হোস্টিংয়ের কারণে সাইটের বিভিন্ন সমস্যা লেগেই থাকে। সমস্যার সমাধান করতে করতে এদের সময় চলে যায়। তাই সাইট তৈরি করে নিজের লক্ষ্যে পৌঁছাতে অনেক সময় লেগে যায়।

কয়েকটি ভালো ডোমেইন ও হোস্টিং কোম্পানি হচ্ছে:

আমরা আমাদের পরিচিতদের ও সম্মানিত ভিজিটরদের কে। উক্ত কোম্পানির কাছ থেকে ডোমেইন ও হোস্টিং রেজিষ্ট্রেশন করতে পরামর্শ দিয়ে থাকি।

ওয়েবসাইট তৈরি করার নিয়ম বা ওয়েবসাইট কিভাবে বানাবো?

এখন আসবে আপনাদের প্রশ্নের মূল উত্তরে। অবশ্যই আগের দুটি ধাপও খুঁবই জুরুরি ছিল। কারণ আগের দুটি ধাপকে অবহেলা করে আপনি কখনও ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারবেন না।

উপরের ২টি ধাপ যদি আপনি সফলভাবে সম্পন্ন করে থাকেন। তাহলে নিচের ধাপগুলো অনুসরণ করতে পারবেন।

০৩. ওয়েবসাইট সেট-আপ করা:

এর আগে আপনি যে ডোমেইন এবং হোস্টিং রেজিষ্ট্রেশন করেছিলেন। এগুলোর মাধ্যমে এখন ওয়েবসাইট সেট-আপ করতে হবে।

যেকোনো একটা সফটওয়্যারকে ব্যবহার করে হোস্টিংয়ের সাথে ডোমেইন নাম কানেক্ট করার কাজটা হচ্ছে সেটআপের কাজ।

ওয়েবসাইট সেট-আপ করার জন্য আমার পছন্দের সেরা সফটওয়্যার হচ্ছে ওয়ার্ডপ্রেস। তাই আপনি চাইবেন অবশ্যই সেরাটা বেছে নিতে।

আপনার হোস্টিং কোম্পানির মানের উপর নির্ভর করে ওয়েবসাইট সেট-আপের কাজ সহজ বা কঠিন হতে পারে।

আপনি যদি কোম্পানির আমাদের দেওয়া কোম্পানিগুলোর কাছ থেকে ডোমেইন এবং হোস্টিং রেজিষ্ট্রেশন করে থাকেন। তাহলে আপনি এক ক্লিকেই ওয়েবসাইট সেট-আপ করতে পারবেন।

০৪. ডিজাইন কাস্টমাইজেশন:

ইতিমধ্যে আপনার কাঙ্ক্ষিত ওয়েবসাইটটি সফলভাবে তৈরি হয়ে গেছে। উপরের ৩টি ধাপে সাইট তৈরি করা শেষ।

এখন হচ্ছে সাইটের সুন্দর্য বৃদ্ধি করার পালা। এটা কেমন ডিজাইন হবে তা রির্ভর করবে সম্পূর্ণ আপনার উপর।

আপনি যেমনটা চাইবেন, সাইটের ডিজাইন তেমন হবে।

ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে ওয়েবসাইট সেট-আপ করলে কোনো কোডিং ছাড়াই আপনি ওয়েবসাইট ডিজাইন করতে পারবেন। এর জন্য আপনার অনেকবেশি অভিজ্ঞতার প্রয়োজন নেই।

ওয়েবসাইট তৈরি করার নিয়ম এর সমাধান সমাপ্তি:

আমরা মনে করছি আপনি আমাদের গাইডলাইন অনুসারে সফলভাবে একটা সাইট তৈরি করতে পেরেছেন।

এবিষয়ে আরও কোনো প্রশ্ন থাকলে নিচের কমেন্ট বাক্সে লিখুন।

ওয়েবসাইট তৈরি করা শেখার জন্য প্রিমিয়াম সাপোর্ট পেতে চাইলে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন: 01316520382
ধন্যবাদ। 😍😍

HostGator Web Hosting

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here