অনলাইন থেকে আয় করতে  freelancer outsourcing সম্পর্কে সঠিক তথ্য ভালো করে জানা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

কিন্তু আমাদের বাংলাদেশের ছেলে মেয়েরা ফ্রিল্যান্সিংআউটসোর্সিং সম্পর্কে সঠিকভাবে গাইডলাইন না পাওয়ার জন্য এখানে সফলতার চেয়ে ব্যর্থ বেশি হচ্ছে।

freelancer outsourcing
freelancer outsourcing

এজন্য bdbloq.com বাংলাদেশের সকল ছাত্র ছাত্রী বা ছেলে মেয়েদের কথা চিন্তা করে সম্পূর্ণ বাংলা ভাষায় ফ্রিল্যান্সিংআউটসোর্সিং সম্পর্কে বিভিন্ন তথ্য বাংলা ভাষায় লিখে নিয়মিত “বিডি ব্লগ” ব্লগ সাইটে প্রকাশ করে যাচ্ছে।

এখানে যারা অভিজ্ঞ ফ্রিল্যান্সিংআউটসোর্সিং নিয়ে মোটামুটি সফল, তাদের লিখার সুযোগ দেওয়া হয়।

যেন অভিজ্ঞরা তাদের অভিজ্ঞতার জ্ঞান অন্যদের সাথে শেয়ার করার মাধ্যমে নতুনদের কে শিখাতে পারেন।

আপনি এই ওয়েবসাইটে freelancer outsourcing এর পাশাপাশি জানতে পারবেন:

অনলাইন থেকে কিভাবে আয় করতে হয়?
কিভাবে ওয়েবসাইট পরিচালনা করতে হয়?
অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং কিভাবে করতে হয়?
কিভাবে ইউটিউবে কাজ করে আয় করা যায়?

এরকম হাজার হাজার গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নের উত্তর সহ গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে শিখতে ও জানতে পারবেন।

ফ্রিল্যান্সিং ও আউটসোর্সিং মানে কি?

ফ্রিল্যান্সিং মানে আপনি আপনার কাজ বিক্রি করুন। আউটসোর্সিং মানে আপনি কাজ কিনুন। আপনি যখন ফ্রিল্যান্স করেন, আপনি পণ্য এবং পরিষেবাগুলি অন্য লোকের কাছে বিক্রয় করছেন।

আপনি যখন আউটসোর্সিং করছেন তখন আপনি পণ্য এবং পরিষেবা কিনছেন।

আউটসোর্সিং এবং ফ্রিল্যান্সিংয়ের মধ্যে পার্থক্য কী?

আউটসোর্সিং এবং ফ্রিল্যান্সিংয়ের মধ্যে পার্থক্য জেনে নেওয়া যাক। ‘আউটসোর্সিং’ এর অর্থ ‘বাইরে থেকে অতিরিক্ত টাকা আয় করার উৎস পাওয়া’।

ফ্রিল্যান্সিং হলো কোনো বাধ্যবাধকতা ছাড়াই স্বাধীনভাবে কাজ করে উপার্জন করা। আউটসোর্সিং এর মাধ্যমে চাকরি ছাড়াই আয় করা যায় এবং ফ্রিল্যান্সার স্বাধীন চাকরির বেতন নিয়ে কাজ করে দিয়ে আয় করতে পারেন।

একজন ফ্রিল্যান্সার একটি টাস্ক পায় এবং একজন আউটসোর্সার কাজ করিয়ে টাস্কের অর্থ প্রদান করে।

Back To Top